SSC SCAM: পাহাড়‌ চড়ছে প্রাথমিকে নিয়োগে দুর্নীতির অঙ্ক

34
west bengal SSC scam

রাজ্যে এক এক করে শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে একাধিক দুর্নীতির সামনে আসছে।। প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগ (SSC SCAM) মামলায় মানিক ভট্টাচার্যকে গ্রেফতার করেছে ইডি। এরপরেই তলব করা হয় মানিক ঘনিষ্ঠ তাপস মণ্ডলকে৷ তাকে জেরার পরই চাঞ্চল্যকর তথ্য সামনে আসে। তার বয়ান থেকেই জানা যায়, প্রায় ৬০০ টি ডিএলএড কলেজ থেকে ভর্তির কোটি কোটি টাকা সরাসরি চলে যেত মানিকের কাছেই৷ মানিকের ছেলের সাথেই কোটি কোটি টাকার লেনদেন হয়েছে তাপসের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলি থেকে।

  • শিক্ষা দফতরের নিয়োগ দুর্নীতিতে টাকার পাহাড় দেখা যাচ্ছে
  • মানিক কি পার্থকেও টপকে যাবেন?
  • জেরায় বের হচ্ছে বিস্ফোরক তথ্য

বিস্তারিত পড়ুন:

শিক্ষা দফতরের নিয়োগ দু্নীতিতে ধৃত প্রাক্তন পর্ষদ সভাপতি তথা তৃণমূল কংগ্রেস বিধায়ক মানিক ভট্টাচার্যের কালো টাকার পরিমাণ কি প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের বিপুল বেআইনি রোজগারের থেকে বেশি? তদন্তে উঠে আসছে এমনই প্রশ্ন।

ইডির জিজ্ঞাসাবাদে মানিক সাগরেদ তাপস মণ্ডল জানিয়েছে, অনলাইনে ভর্তির সময়সীমা পেরিয়ে যাওয়ার পরেও ভর্তি করা হত৷ এর জন্য অতিরিক্ত ৫ হাজার টাকা করে নেওয়া হত৷ সেই টাকার ভাগ পেতেন তৃণমূল বিধায়ক মানিক৷ রাতভর জিজ্ঞাসাবাদের পরই ‌মানিকের কারনামার কথা ইডির খোলসা করে বলেছেন তাপস মণ্ডল। 

ইডি সূত্রে খবর, অতিরিক্ত টাকা দিয়ে কারা অফলাইনে ভর্তি হতেন, সেই তালিকা চেয়ে পাঠিয়েছে এনফোর্সমেন্ট ডাইরেক্টরেট। একইসঙ্গে নিয়োগ নিয়ে বেশ কিছু তথ্য চেয়ে পাঠানো হয়েছে৷ ইডি সূত্রে খবর, অফলাইনে যারা ভর্তি হয়েছেন, তাদের তালিকার সঙ্গে অযোগ্য চাকরি প্রার্থীদের তালিকা মিলিয়ে দেখা হবে। 

উল্লেখ্য, প্রাথমিকে শিক্ষক পদে নিয়োগের ক্ষেত্রে চুড়ান্ত দুর্নীতি হয়েছে, একথা আগেই জানিয়েছিল কলকাতা হাইকোর্ট৷ আদালতের নির্দেশেই প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ মামলায় তদন্ত শুরু করে সিবিআই৷ কিন্তু দুর্নীতি নিয়ে মানিকের প্রতি ইডির সন্দেহ হতেই তাকে গ্রেফতার করা হয়৷ আগামী ২৮ অবধি প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের মতো মানিকেরও ঠিকানা প্রেসিডেন্সি কারাগার৷

(সব খবর, সঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে পান। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram এবং Facebook পেজ)