Saturday, February 4, 2023

ভয়াবহ ভুমিকম্পে কেঁপে উঠল হাইতি, ‘কৃত্রিম’ কিনা উঠছে প্রশ্ন

- Advertisement -

নিউজ ডেস্ক: শনিবার ৭.২ মাত্রার শক্তিশালী ভুমিকম্পে কেঁপে উঠল ক্যারিবিয়ান রাষ্ট্র হাইতির পশ্চিমাঞ্চলে। প্রায় গোটা ক্যারিবীয় দ্বীপপূঞ্জজুড়েই অনুভূত হয়েছে ভুমিকম্প। ভূমিকম্পের ফলে প্রচুর মানুষ হতাহত হয়েছেন এবং সম্পত্তির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তবে কতজন মারা গেছেন এবং কি পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে সে সম্পর্কে বিস্তারিত জানা যায়নি।

- Advertisement -

আরও পড়ুন জানতে চায় ভারত: আজব চুক্তি উপেক্ষা করে কেন ‘রিপাবলিক ভারত’ ছাড়তে চাইছেন কর্মীরা?

United States Geological Survey (ইউএসজিএস) জানিয়েছে, হাইতির পেটিট ট্রুও ডি নিপ্পেস থেকে ৮ কিলোমিটার দূরে ৭.২ মাত্রার এই ভূমিকম্পটি তৈরি হয়েছে। ভূপৃষ্ঠে এর গভীরতা ছিল ১০ কিলোমিটার। এটি ২০১০ সালে হাইতিতে হওয়া ভূমিকম্পের চেয়েও শক্তিশালী বলে জানিয়েছে তারা। ২০১০ সালের ওই ভূমিকম্পে প্রায় দু’লক্ষ মানুষের মৃত্যু হয়েছিল। ভেঙ্গে পড়েছিল অসংখ্য বাড়িঘর-ভবন। বহু মানুষ গৃহহীন হয়েছিল।

- Advertisement -

Haiti Earthquake "Strange," Strongest in 200 Years

যদিও অনেক বিশেষজ্ঞ দাবি করেন ২০১০ সালের ভয়াবহ ভুমিকম্প প্রাকৃতিক নয়, কৃত্রিম। ‘হার্প’ প্রযুক্তির সাহায্যে এই ভুমিকম্প ঘটিয়েছিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। HAARP অর্থাৎ ‘High Frequency Active Auroral Research Project’. এটি আমেরিকার সামরিক বাহিনী পরিচালিত প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের একটি গোপন পরীক্ষা। তবে আমেরিকার পাশাপাশি রাশিয়াও এই প্রযুক্তি ব্যবহার করছে। এই প্রযুক্তির মাধ্যমে কৃত্রিম ভাবে ভুমিকম্প, সুনামী ঘটানো সম্ভব। টেসলার বিখ্যাত ‘ফ্রী এনার্জি’ থিওরি থেকেই মূলত এই হার্প টেকনোলোজি এসেছে। শুধু হাইতিই নয়, ২০১৫ সালে নেপালের ভুমিকম্পকেও কৃত্রিম বলে দাবি করেছিলেন অনেক গবেষক।

আরও পড়ুন Chamba Lama: কলকাতার রুপোর গয়নার ওয়ান স্টপ শপ

ভূমিকম্প হলেও হাইতির সরকারের পক্ষ থেকে হতাহতের বিষয়ে এখনো কিছুই জানানো হয়নি। আশঙ্কা করা হচ্ছে ইতিমধ্যেই প্রচুর মানুষের মৃত্যু হয়েছে। প্রায় কয়েক লক্ষ মানুষ ঘরছাড়া। ভুকম্পন অনুভূত হওয়া হাইতির প্রতিবেশী দেশ কিউবার গুয়ানতানামো শহরের এক বাসিন্দা জানিয়েছেন, ‘সকলে ভীষণ ভীত-সন্ত্রস্ত। দীর্ঘদিন এত শক্তিশালী ভূমিকম্প হয়নি।’