ডজন ডজন বোমা উদ্ধার কেশপুরে, TMC-CPIM মিছিলে শক্তি দেখানোর পালা

বিপুল বোমা উদ্ধারের পর কেশপুর সরগরম। সাঁইথিয়ার বহড়াপুরের মতো পরিস্থিতি। পঞ্চায়েত ভোটের আগে গরম হচ্ছে গ্রাম বাংলা

42

এ যেন বোমা মজুতের টেক্কা দিতে মরিয়া চেষ্টা! বীরভূমের বহড়াপুরে রাশি রাশি বোমা উদ্ধার হচ্ছে। সমানতালে বোমা বাজেয়াপ্ত করা হচ্ছে (Paschim Medinipur) পশ্চিম মেদিনীপুরের কেশপুর (Keshpur) থেকে। তল্লাশিতে নেমেছে বম্ব স্কোয়াড। রাজনৈতিক সংঘর্ষের ২৪ ঘণ্টা পরেও কেশপুরের চরকা গ্রামে বোমা হামলার ঘটনায় অধরা অভিযুক্তরা।

কেশপুর বোমাপুর! এমনই পরিস্থিতি। পঞ্চায়েত ভোটের আগে কেশপুর ফের তেতে উঠেছে। বৃহস্পতিবার কেশপুরের চরকা এলাকায় তল্লাশি চালিয়ে কমপক্ষে ২৫টি তাজা বোমা উদ্ধার করেছে পুলিশ। কেশপুর জুড়ে আতঙ্ক।

পঞ্চায়েত ভোটের সময় কী পরিস্থিতি তৈরি হতে চলেছে তার আগাম আন্দাজ আসছে গত কয়েকদিন ধরে সাঁইথিয়া, কেশপুর, মিনাখাঁয় পরপর তৃণমূল কংগ্রেস গোষ্ঠিদ্বন্দ্বে বোমা হামলার ঘটনায়। আপাতত তেতে গেছে বীরভূমের সাঁইথিয়া, পশ্চিম মেদিনীপুরের কেশপুর ও উত্তর ২৪ পরগনার মিনাখাঁ। বু়ধবার সকালে কেশপুরে বোমা বিস্ফোরণে জখম হন তৃণমূল কংগ্রেস সমর্থক। রাতে মিনাখাঁয় বোমা ফেটে শিশুর মৃত্যু হয়েছে

বুধবার কেশপুরের চরকা গ্রামে তৃ়ণমূল কংগ্রেসের গোষ্ঠি সংঘর্ষ হয় বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ। সংঘর্ষের সময় বোমাবাজির ঘটনায় এক তৃ়ণমূল সমর্থকের হাতের কিছু অংশ উড়ে যায়। গুরুতর জখম অবস্থায় সে মেদিনীপুরে চিকিৎসাধীন।

 

রাজনৈতিক সংঘর্ষ ও বোমাবাজির ঘটনার পর পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের অভিযোগ ছিল, হামলায় জড়িত সিপিআইএম। সেই অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে বাম শিবির।

কেশপুরের পরিস্থিতি নিয়ে তৃ়ণমূল নেত্রী ও কেশপুরের বিধায়ক শিউলি শাহা অভিযোগ করেন সিপিআইএম অশান্তি তৈরির চেষ্টা করছে। পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা সিপিআইএম সম্পাদক ও প্রাক্তন মন্ত্রী সুশান্ত ঘোষের দাবি, বোমা মেরে মানুষকে দাবিয়ে রাখতে চাইছে তৃণমূল কংগ্রেস। তাদের পায়ের তলায় মাটি নেই।

বৃহস্পতিবার তৃ়ণমূল কংগ্রেস ও সিপিআইএমের পক্ষ থেকে মিছিল হয় কেশপুরে। দুটি মিছিলেই ছিল ভিড়। তৃ়ণমূলের মিছিলে ছিলেন শিউলি সাহা। সিপিআইএমের মিছিলে ছিলেন কেশপুরের বাম নেতারা।

(সব খবর, সঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে পান। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram এবং Facebook পেজ)