সমাবেশে যুবদের ভিড় CPIM-এর ভোট খরা কাটাবে?

শূন্য হলেও আগামীতে ব্রিগেড ভরানোর ক্ষমতা সিপিআইএমের আছে। মানছে তৃ়ণমূল কংগ্রেস। ভিড় মানেই কি ভোট বাড়ছে?

79

ধর্মতলায় বাম ছাত্র-যুবদের বিরাট সমাবেশ (Insaf) রাজনীতিতে সাড়া ফেলে দিয়েছে। সমাবেশে বিপুল সমাগমে মঙ্গলবার ছিল জেলা থেকে কলকাতায় যাওয়া ভিড়। ওয়াই চ্যালেন থেকে ডোরিনা ক্রসিং, জন জোয়ারে স্তব্ধ হয়ে যায় শহর কলকাতা। কিন্তু এই বিপুল সংখ্যক মানুষের সমাগম বামেদের (CPIM) ভোট ফেরাবে? অতীত নজির কিন্তু তা বলছে না।

বিধানসভা নির্বাচনের আগে ব্রিগেড সমাবেশ করেছিল বামফ্রন্ট। সেখানে তৈরি হয়েছিল সংযুক্ত মোর্চা জোট। সেই সমাবেশে অগনিত মানুষের ভিড় বারবার বামেদের পালে হাওয়া ধরিয়েছিল।মনে হয়েছিল, বিজেপি ও তৃণমূল কংগ্রেসের মুখোমুখি লড়াইয়ে ফাইট দেবে টানা সাড়ে তিন দশকের সরকার চালানো সিপিআইএম। কিন্তু তা হয়নি। বিপুল সমাবেশের পর বিরাট হতাশাজনক ফল হয়। সংযুক্ত মোর্চার জোটে মাত্র একটি আসন৷ খালি হাতে ফিরতে হয় কংগ্রেস ও বাম শিবিরকে।

রাজনৈতিক মহলের আলোচনা নিভে যাওয়া বামেদের প্রদীপ ফের জ্বালাতে শুরু করেছে বাম ছাত্র-যুবরা। শাসক দলের একাধিক দুর্নীতি তাদের সেই রাস্তা প্রশস্ত করে। ধর্মঘটের সমাবেশ দেখে অনেকটা আশ্বাস পেয়েছেন নিচুতলার বাম কর্মীরা৷ কিন্তু এই বিপুল মানুষের সমাগম ভোট বাক্সে বদল হবে কিনা তা এমন নিশ্চিত হতে পারছেন না সেলিম, সুজন, মীনাক্ষীরা।

ধর্মতলার উদ্দেশ্যে দলীয় সমর্থকরা

তবে বাম শিবিরের সাম্প্রতিক ভোট পরিসংখ্যান বিরোধী দল বিজেপির তুলানায় ভালো। বিরোধী দল হয়েও একটি পুরসভা তাদের হাতে নেই। আর বিধানসভায় শূন্য হলেও সিপিআইএম ও কংগ্রেসের দখলে দুটি পুরসভা। তাছাড়া সবকটি পুরসভা ও পুরনিগমগুলিতে বামশিবির ভোটের নিরিখে দ্বিতীয় বড় শক্তি। একথা মেনে নিচ্ছে শাসক তৃণমূল কংগ্রেস ও বিরোধী দল বিজেপি।

বছর ঘুরলেই পঞ্চায়েত নির্বাচন৷ বিধানসভার জগাখিচুড়ি জোট কাটিয়ে একলা চলো নীতি নিয়েছে বামফ্রন্ট। জেলায় জেলায় অনেকটা উজ্জীবিত বাম। তবে বিভিন্ন পঞ্চায়েতে তৃণমূল ত্যাগ করে বাম শিবিরে ঢোকার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। আগামী বছরের পঞ্চায়েত নির্বাচন বামেদের জন্য বড় পরীক্ষা। কারণ, পঞ্চায়েত নির্বাচন থেকেই রাজ্য রাজনীতির পুর্বাভাস মেলে। ওই হাওয়া ঘোরাতে কতটা সক্ষম হবে বামেরা? তা নিয়ে প্রশ্ন থাকছে।

যদিও দলের বিপর্যয়ের পর থেকে ব্লক স্তরে ও বুথ স্তরে বিশেষ গুরুত্ব শুরু করেছিল বাম নেতৃত্ব। জেলায় জেলায় মিছিল করে বাম কর্মীদের মূলস্রোতে আনার চেষ্টা জারি রয়েছে। শুধুমাত্র সভা-সমাবেশ নয়, ভোটের অঙ্কেও বিরাট বদল আনতে চায় বাম শিবির।