দেশে ফিরে এয়ারপোর্টেই বিয়ের প্রস্তাব পেলেন অলিম্পিকে পদকজয়ী

92
Jeffer-Abel

অলিম্পিকে দেশের হয়ে অংশ নিতে যাওয়া প্রত্যেকেরই লক্ষ থাকে গায়ে দেশের পতাকা জড়িয়ে পোডিয়ামে ওঠা। পদক পেলে খুশির অন্ত থাকে না দেশবাসীরও। ফলে পদক নিয়ে দেশে ফিরতেই আদরের বন্যায় ভেসে যান পদকজয়ীরা। আদর-অভ্যর্থনা শুরু হয়ে যায় এয়ারপোর্ট থেকেই। কিন্তু, টোকিও অলিম্পিকের পদকজয়ী দেশে ফিরে এয়ারপোর্টে শুধু অভিনন্দনই নয়, পেলেন আরেকটি গুরুত্বপূর্ন উপহারও।

আরও পড়ুন নাম বদলে রাজীব গান্ধী খেলরত্ন এবার মেজর ধ্যানচাঁদ খেলরত্ন পুরস্কার

অলিম্পিকে রুপোর পদক পেয়ে কানাডিয়ান ডাইভার জেনিফার আবেল তিন মিটার সিঙ্ক্রোনাইজড স্প্রিং বোর্ড ইভেন্টে দেশকে গর্বের আসনে বসিয়েছেন। মনের আনন্দে দেশে ফিরছিলেন তিনি। তবে এয়ারপোর্টেই যে আরেক চমক অপেক্ষা করছিল তা আন্দাজও করতে পারেননি তিনি।

Silver for Jennifer Abel in synchronized diving at the Tokyo Olympics after  disappointment five years ago - The Globe and Mail

বিমানবন্দরেই তাকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে বসেন এক ব্যক্তি। খালি হাতে নয়, ডায়মন্ড রিং হাতে হাঁটু গেড়ে বসে নিজের মনের কথা জানান ওই ব্যক্তি। আর তাতেই আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন ২৯ বছর বয়সী জেনিফার। কারণ ওই ব্যক্তি তার বয়ফ্রেন্ড ডেভিড লেমিইউক্স।

ডেভিড নিজে একজন বক্সার এবং তিনি নিজেও যথেষ্ট খুশি জেনিফারের এই সাফল্যে। সঙ্গীনির জীবনের এই সাফল্য উদযাপন করতেই ডেভিডের এমন বহিঃপ্রকাশ তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। বিমানবন্দরে উপস্থিত সকলেই তাঁদের প্রেমের উদযাপনে অংশগ্রহণ করেন।

Watch: Canadian Olympic medallist gets surprise marriage proposal from  boyfriend at airport | Lifestyle News,The Indian Express

পরে জেনিফার সোশ্যাল মিডিয়ায় লিখেছেন, “আই সেড ইয়েস টু মাই সোলমেট।” অর্থাৎ জাপানে রুপো প্রাপ্তির পর এবার দেশে ফিরেও আরেক উফার পেলেন তিনি। টিম কানাডার টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে ঘটনার ভিডিও পোস্ট করা হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।