19 C
Kolkata
Sunday, February 5, 2023

বিশ্বকাপ হাতে না নেওয়ার সুখানুভূতি! কুলিবালি মানে সেনেগালি-সোনালি গল্প

- Advertisement -

প্রসেনজিৎ চৌধুরী:
লোকটা পাগল নাকি! আজকাল কেউ এমন করে। ফরাসি জাতীয় দলের হয় বিশ্বকাপের হাই প্রোফাইল ম্যাচ খেলার সুযোগ লাথি মেরে মাঠের বাইরে ফেলে চলে গেল! আর গেল তো গেল ফিরেও তাকাল না। (Kalidou Koulibaly) কুলিবালি-এক সেনেগালি-সোনালি গল্পের চরিত্র। যে গল্পে মিশে আছে ফ্রান্সের হয়ে বিশ্বকাপ হাতে না নেওয়ার সুখানুভূতি!

- Advertisement -

ঠিকই পড়লেন-সুখানুভূতি!
নিজ দেশ সেনেগালের (Senegal) হয়ে খেলার সুখ আর লড়াই করে হেরে যাওয়ার মতো একটা দুর্দান্ত কাহিনীর নায়ক কালিদু কুলিবালি।

- Advertisement -

কী হতেন কুলিবালি?
২০১৮ সালে বিশ্বকাপ জয়ী ফ্রান্স দলের সদস্য হিসেবে চিহ্নিত হতেন। তবে হলেন সেনেগালি রণক্লান্ত যোদ্ধা! ২০১৫ সালে এই কুলিবালিকে ফ্রান্সের জাতীয় দলে ডেকে ডেকে ক্লান্ত হয়ে গেছিলেন ফরাসি দেশের ফুটবল ম্যানেজার দিদিয়ের দেশম। সেই বছরেই তিনি ফ্রান্স থেকে চলে গেছিলেন সেনেগালের হয়ে ফুটবল খেলতে। যাওয়ার আগে বলেছিলেন, সেনেগালের হয়ে ফুটবলে কিছু একটা করতে চাই – “I don’t have any regrets because I want to write the story of the future of Senegal football and I hope I’ll be able to do that.”

আকৈশোর যৌবনের বহু চেনা ফ্রান্স, ঝাঁ চকচকে ফরাসি ফুটবলের মনোহর হাতছানি পিছনে ফেলে কোন সুদূর এক স্বপ্নপুর সেনেগাল চলে যাওয়া দেখে কুলিবালির সতীর্থরা হতবাক। তারা এও দেখল বিশ্ব ফুটবলের সামনের সারি থেকে অখ্যাত পিছনের সারিতে চলে যাওয়ার কী আনন্দ কুলিবালির।

বাবা মায়ের সাথে ছোট বেলায় চলে আসা ফ্রান্সে। এরপর ফের সেনেগাল চলে যাওয়া ছিল কঠিন সিদ্ধান্ত। কুলিবালি চলেই গেলেন। ফ্রান্স ত্যাগের তিন বছরের মাথায় ২০১৮ সালের বিশ্বকাপে তাঁর দেশ সেনেগাল গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিল। আর ফ্রান্স বিশ্বসেরা।

ঠিক এই কারণে কেরিয়ার ত্যাগী কুলিবালিরা হারিয়ে যান অল্পতেই। তবে তাদেরই সামনে কেরিয়ার প্রেমীরা ফিকে হয়ে যান অনায়শে। পাগলাটে কুলিবালিদের সামনে থাকে খালি পায়ের ফুটবল খেলার গলি, পাড়ার মোড়ের ছোট্ট দোকানে ঝোলানো ফুটবল, আর দেশের টান।

টিভিতে ফ্রান্সের জয় দেখে চোখ ভিজে গেছিল আনন্দে। তবে কুলিবালি তখন পরবর্তী যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হচ্ছেন। যে যুদ্ধের রণভূমি কাতার।

আফ্রিকার সেনেগাল।এই সেনেগালি ফুটবল কুলিবালির পায়ে হয় উতরোবে না হয় ফের রণক্লান্ত যোদ্ধা হয়ে যাবেন কুলিবালি। আবার অন্য কোথাও যুদ্ধে নামবেন তিনি।