তরুণ খেলোয়াড়দের সুযোগ দিলে দলের পক্ষেই ভালো: মার্কাস জোসেফ

66
Marcus Joseph

কলকাতা লিগের প্রিমিয়ার ডিভিশন ‘এ’ সুপার সিক্স পর্বের ম্যাচে এরিয়ান এফসি’র বিরুদ্ধে ৩-০ গোলে জয় পেয়েছে মহামেডান স্পোটিং ক্লাব (Mahamedan SC)। ব্ল্যাক প্যাহ্নর্সদের হয়ে গোল করে অধিনায়ক মার্কাস জোসেফ (Marcus Joseph), উসমানে এন’দিয়া, ফাসলু রহমান।

খেলার ৪৩ মিনিটে এরিয়ানের শুভ বিশ্বাসের ব্যাড ক্লিয়ারেন্সের সুযোগে সাদা কালো শিবিরের অধিনায়ক মার্কাস জোসেফ সুযোগ পেয়ে যায় এবং এই সুযোগে মার্কাস বল এরিয়ানের জালে জড়িয়ে দিতেই মহামেডান ১-০ গোলের লিড নেয়। মহামেডানের দ্বিতীয় গোল আসে দলগত প্রচেষ্টাতে। ৬২ মিনিটে, সেখ ফৈয়াজ ডান দিক দিয়ে সেন্টার বাড়ায় মার্কাসকে লক্ষ্য করে। মার্কাস বুক দিয়ে বল ট্যাপ করে

উসমানের দিকে বাড়ায় আর উসমানের করা গোলে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় হেডকোচ আন্দ্রে চেরনশিভের মহামেডান স্পোটিং ক্লাব। ৮১ মিনিটে এরিয়ানের ডিফেন্ডারের ব্যাড ক্লিয়ারেন্সের সুযোগে গোল করেন ফাসলু রহমান।

রবিবার কল্যাণী স্টেডিয়ামে ৬২ মিনিটে, মহামেডানের দ্বিতীয় গোলের পিছনে অধিনায়ক মার্কাস জোসেফের দুরন্ত ফিটনেস এরিয়ানের বিরুদ্ধে গোলের ব্যবধান বাড়ানোর কাজে ‘এক্স ফ্যাক্টর’ হিসেবে কাজ করেছে। যেভাবে সেখ ফৈয়াজের ডান দিক দিয়ে বাড়ানো সেন্টারকে মার্কাস বুক দিয়ে ট্যাপ করে উসমানের দিকে বাড়ায় তা এককথায় অনবদ্য। মার্কাস জোসেফের ওই অ্যাসিস্ট ছিল সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত, খেলা চলাকালীন মার্কাসের ওই উপস্থিত বুদ্ধির জোরেই উসমান গোল পায়।

গোল করে এবং গোল করানোর পিছনে মার্কাস জোসেফের এদিনের সামগ্রিক পারফরম্যান্স এখন চর্চ্চার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে ফুটবল মহলে। এমন নজরকাড়া পারফর্ম দেখে উচ্ছ্বসিত সাদা কালো সমর্থকরা। এদিন ম্যাচ শেষে নিজের প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে মাঠের ভিতর ৯০ মিনিট জুড়ে যেভাবে একজন দক্ষ ফুটবলারের ছাপ রেখেছেন মহামেডান স্পোটিং’র অধিনায়ক মার্কাস জোসেফ ঠিক একই ভাবে এরিয়ানের বিরুদ্ধে গোল করে এবং গোল করানোর বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে মার্কাস বলেন,”টিমের পারফরম্যান্স ভালো হয়েছে আমার কাছে। তবে এর থেকেও আমরা ভালো রেজাল্ট করতে পারতাম।” মার্কাস জোসেফ বলতে থাকেন, “মরসুম সবে শুরু হয়েছে, কলকাতা লিগের গুরুত্ব কতটা তা আমরা জানি। আমরা এই জয়ের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে চাই।”

এরিয়ানের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় গোলের অবদান প্রসঙ্গে মহামেডান অধিনায়ক মার্কাস জোসেফ বলেন, “ব্যক্তিগত ভাবে আমি আরও বেশি করে গোলের জন্য অ্যাসিস্ট করতে চাই, কারণ দলের তরুণ খেলোয়াড়দের সুযোগ দিলে তা দলের পক্ষেই ভালো হয়ে থাকে, ফুটবল এরকমই।” একজন প্রকৃত টিমম্যানের স্পিরিট আগাগোড়া সাদা কালো জার্সি গায়ে দেখা যায় মার্কাস জোসেফের খেলা থেকে। এরিয়ানের বিরুদ্ধে ম্যাচের আগেও মহামেডান অধিনায়কের এই টিমম্যান গেমের ঝলক রয়েছে।

সাদা কালো শিবির এখন অতীতে ডুরান্ড কাপের সেমিফাইনাল থেকে ছিটকে যাওয়া ভুলে গিয়ে চলতি কলকাতা লিগে ভবানীপুরের বিরুদ্ধে ম্যাচ জেতার লক্ষ্যে ফোকাস ধরেছে। এই ম্যাচ হবে ২৯ সেপ্টেম্বর, কল্যাণী স্টেডিয়ামে।