T 20 WC: ৩০ বছর পর প্রতিশোধ, ব্রিটিশদের ব্যাটে-বলে বধ পাকিস্তানিরা

45

কিংবদন্তি ইমরান খানের নজির ছুঁতে মরিয়া ছিলেন পাক অধিনায়ক বাবর আজম। তবে পারলেন না। ব্রিটিশরা ব্যাটে-বলে বধ করল পাকিস্তানকে (Pakistan) । ঠিক তিন দশক আগে যেভাবে বিশ্বকাপ ক্রিকেট পাকিস্তানের কাছে পরাজিত হয়েছিল (England) ইংল্যান্ড, একই মাঠে সেই পরাজয়ের বদলা হয়ে গেল টি টোয়েন্টি (T 20 WC) বিশ্বকাপে।

পাকিস্তানকে ৫ উইকেটে হারিয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নিজেদের দ্বিতীয় শিরোপা জিতেছে ইংল্যান্ড। 

পাকিস্তান রানার্স। পাকিস্তান জুড়ে হতাশা। টালমাটাল পাক রাজনীতির মাঝে বিশ্বকাপ জয়ের আগাম স্বপ্নের জাল বুনেছিলেন আম পাকিস্তানিরা। তাঁদের মনে ছিল ইমরান খানের (Imran Khan) হাতে ক্রিকেট বিশ্ব জয়ের ট্রফি। যে জয় ১৯৭১ সালে ভারতের সামনে অস্ত্র নামিয়ে দু-টুকরো হওয়ার বেদনা ভুলিয়েছিল পাকিস্তানিদের।

তিন দশক আগের ১৯৯২ সালের সেই মুহূর্ত-কচি কলাপাতা রঙের জার্সিধারী পাক ক্রিকেটের (Pakistan Cricket) পাশে চিরস্থায়ী হয়ে গেছিল ক্রিকেট বিশ্বকাপ জয়ের শিরোপা-তকমা। সেটা ছিল ফিফটি ফিফটি ক্রিকেট বিশ্বকাপ। এবার টি টোয়েন্টি।  সেই মেলবোর্ন। সেই পাকিস্তান বনাম ইংল্যান্ডের ফাইনাল ম্যাচ।

স্বাভাবিক নিয়মে সেদিনের বিশ্বকাপ জয়ী ইমরান খান ক্রিকেট ছেড়েছেন। তারপর নেমেছেন রাজনীতির বাইশ গজে। সেখানেও চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন। নিজের দল তেহরিক ই ইনসাফকে পাকিস্তানের ক্ষমতার স্বাদ দিয়েছেন। বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ক্রিকেটার অধিনায়ক থেকে প্রধানমন্ত্রী হওয়া-রাজনীতির এমন মারাত্মক পটপরিবর্তনের তিনিই একমাত্র নজিরধারী। আপাতত ক্ষমতা হারিয়ে ফের রাজপথে নেমে গুলি খেয়েছেন। প্রাণে বেঁচে ফের ক্ষমতা দখলের জন্য মিছিলে নেমেছেন।

পাকিস্তানের অন্দরে চলছে টালমাটাল পরিস্থিতি। ফের সামরিক আইন জারির প্রবল সম্ভাবনা। এই পরিস্থিতিতে পাক জনজীবনে ক্রিকেটের উত্তাপ লেগেছিল।  আপাতত রানার্স হয়েই দেশে ফেরার বিমান ধরবে পাক দল। আর বিশ্বজয়ী ক্রিকেট দল হিসেবে বাড়ি ফিরবেন ব্রিটিশরা।

(সব খবর, সঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে পান। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram এবং Facebook পেজ)