East Bengal: ম্যাচ হেরে গিয়ে ‘অজুহাতের ফিরিস্তি’ শোনা গেল কনস্টাটাইনের মুখে

146
East Bengal coach

ঘরের মাঠে জয় অধরাই থেকে গেল ইস্টবেঙ্গল এফসির (East Bengal)। শুক্রবার যুবভারতী ক্রীড়াঙ্গনে ইস্টবেঙ্গল এফসি০-১ গোলে হেরে গিয়েছে চেন্নাইন এফসির কাছে। পাঁচ ম্যাচ খেলে একমাত্র নর্থইস্ট ইউনাইটেড এফসির বিরুদ্ধে জয় পেয়েছে অঙ্কিত যাদবরা। হেরেছে ডার্বি ম্যাচ,সঙ্গে টানা ৭ ডার্বি ম্যাচ হারের তকমা সেটে গিয়েছে লাল হলুদ জার্সিতে। এভাবে আর কতদিন চলবে এই প্রশ্নই এখন মাথাচাড়া দিয়েছে লাল হলুদ ভক্তদের মধ্যে।

স্টিফেন কনস্টাটাইনের কোচিং পারফরম্যান্স নিয়ে ইতিমধ্যেই কাটাছেড়া শুরু করে দিয়েছে রেড এন্ড গোল্ড ব্রিগেডের জনতা। কিন্তু এত সমালোচনার ঝড়ের মাঝেও বেশ নির্লিপ্ত কোচ কনস্টাটাইন। চেন্নাইন এফসি ম্যাচ শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে টানা হারের কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে ইস্টবেঙ্গল এফসি টিমের বৃটিশ কোচ স্টিফেন কনস্টাটাইন যা বললেন তা হল এরকম, “আমি এখানে অজুহাত দিতে আসিনি। আমরা দু-তিনটে গোলের সুযোগ পেয়েছি। তার মধ্যে একটাও কাজে লাগাতে পারলে বিরতিতে আমরা ১-০-য় এগিয়ে থাকতে পারতাম। তা হলে ম্যাচটাই অন্য রকম হত।”

কনস্টাটাইনের কথায়,” গোলের সামনে আমাদের আরও সতর্ক হতে হবে। সুযোগগুলো কাজে লাগাতে হবে। দ্বিতীয়ার্ধে আমরা যথেষ্ট ভাল খেলেছি। তবে ওরা কর্নার থেকে অনায়াসে একটা গোল পেয়ে যায়। যা খুবই হতাশাজনক। ওই গোলটা খাওয়া উচিত হয়নি। গোলের পরে ওদের যখন একজন কমে গেল, তার কিছুক্ষণ পরেই আমাদেরও একজনকে মাঠ ছাড়তে হল। এই ধরনের ভুল করলে চলে না। এই ভুলগুলোরই খেসারত দিতে হল আমাদের। পর পর দুটো হার স্বীকার করতে হয়েছে।”

অত্যন্ত নির্লিপ্ততার সঙ্গে সাংবাদিক বৈঠকে স্টিফেন কনস্টাটাইন বলতে থাকেন,”পরপর তিনটে ম্যাচেও হারতে পারি। কিছু করার নেই।” সঙ্গে অতীতের মতোই লাল হলুদ ভক্তদের পাঠ পড়ানোর ঢঙে ইস্টবেঙ্গল কোচ বলেন, “ধৈর্য্য রাখতে হবে সবাইকে। ফুটবলারদের আর একটু সময় দিতে হবে।”

গত দুই ইন্ডিয়ান সুপার লিগ(ISL) সেশনে ইস্টবেঙ্গল পয়েন্ট টেবলে শেষ ধাপে নিজেদের অভিযান শেষ করছে।২০২২-২৩ ISL মরসুমে এখনও পর্যন্ত প্রিয় দলের পারফরম্যান্স দেখে বিমর্ষ লাল হলুদ সমর্থকরা। অজুহাত আর শুধুই অজুহাত দিয়ে চলেছেন কোচ স্টিফেন কনস্টাটাইন, দলকে উইনিং ট্র‍্যাকে ফিরিয়ে আনতে পারছেন না এমনই অভিযোগে সরব লাল হলুদ ভক্তরা।

(সব খবর, সঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে পান। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram এবং Facebook পেজ)