Chhath puja: সূর্যদেবের জাগ্রত পূজার রীতিনীতি পালনে ব্যস্ত দেশবাসী

25

ভারতবর্ষে বিশেষত অক্টোবর মাসজুড়ে পালন হয়ে থাকে ভিন্ন ধরনের উৎসব। হিন্দু প্রধান এই দেশে নানা ধরনের পূজা পালন করা হয়ে থাকলেও ছট পুজো গুলির মধ্যে অন্যতম উল্লেখযোগ্য একটি পুজো। নবরাত্রি থেকে শুরু করে দীপাবলির আলোর উৎসব শেষ হতে না হতেই সময় চলে আসে ছট পুজোর (Chhath puja)। 

এই পুজো মূলত সূর্যদেব ও তার স্ত্রী ঊষাকে অর্পণ করা হয়ে থাকে। প্রধানত এই পুজো বিহার, ঝাড়খন্ড এবং উত্তরপ্রদেশে এই পুজো ব্যাপক হারে প্রাধান্যতা পেয়ে থাকে। বর্তমানে এই পুজো ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে করা হয়ে থাকে। এই পূজা মূলত কার্তিক মাসের শুক্লপক্ষের ষষ্ঠ তিথিতে পালন করা হয়ে থাকে। ছট কথার অর্থ ছটা বা রশ্মি। রশি হল সূর্যের রশ্মি অর্থাৎ ছট পুজো বলতেই সূর্যের রশ্মি পুজোর কথা বলা হয়ে থাকে। এই পুজোতে শুধু সূর্যদেবের পুজো হয় তা নয়, এছাড়া মা গঙ্গা ও অন্নপূর্ণা পূজিত হয়ে থাকে।

প্রধানত অক্টোবর নভেম্বর মাসের পূজা পালন করা হয়ে থাকে আবার কোথাও কোথাও চৈত্র মাসে এই পূজা হয়ে থাকে। হিন্দু ধর্মানুযায়ী রামায়ণ ও মহাভারতের কাহিনীতে এই পূজার বর্ণনা পাওয়া যায়। পৌরাণিক কাহিনী রামায়ণে শ্রীরামচন্দ্র লঙ্কা থেকে অযোধ্যায় ফিরে আসে। রামচন্দ্র ফিরে এলে রামের অভিষেক করা হয় রাজ্যে। সেই সময় রামচন্দ্র তার স্ত্রী সীতার সঙ্গে সকল প্রজার কল্যাণে রাম রাজ্য স্থাপনের জন্য কার্তিক মাসের শুক্ল ষষ্ঠীতে সূর্যদেবের প্রতি পুজো অর্পণ করার জন্য উপাসনা করেছিলেন।

 চার দিনের এই পুজোতে এই ব্রতর শেষ দিন অর্থাৎ চতুর্থ দিনে সকালবেলা সূর্যোদয়ের সময় ছটব্রতী মহিলারা তাদের পরিবারের সঙ্গে ছটঘাটে গিয়ে সূর্যদেবকে অর্ঘ্য নিবেদন করে উপবাস ভঙ্গ করে। চলতি বছরের ২৮ শে অক্টোবর থেকে এই পূজার রীতিনীতি শুরু হবে। এই পুজোর রীতি অনুযায়ী প্রথম দিন স্নান দ্বিতীয় দিন খরনা, তৃতীয় দিন সন্ধ্যা অর্ঘ্য এবং চতুর্থ দিনে ঊষা অর্ঘ্যর মধ্য দিয়ে এই পূজার সমাপ্তি ঘটে।

(সব খবর, সঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে পান। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram এবং Facebook পেজ)