SSC SCAM: দুর্নীতিতে টিম গেমিং, পথের কাঁটা হলেই সরিয়ে দিত পার্থ

26

রাজ্য রাজনীতিতে দুর্নীতির(SSC SCAM) একের পর এক নতুন ফাঁদ সামনে আসছে। মূলত শিক্ষাক্ষেত্রে শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতি বাংলায় পাহাড় গড়েছে। যে শিক্ষামন্ত্রীকে পাশে নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় চাকরিপ্রার্থীদের চাকরি দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন,সেই দুর্নীতির জালে জড়িয়ে কারাগারে দিন কাটছে রাজ্যের প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের।

সিবিআইয়ের পেশ করা চার্জশিটে পার্থর বিরুদ্ধে একের পর এক বিস্ফোরক অভিযোগ উল্লেখ করা হয়েছে। দুর্নীতির ক্ষেত্রে টিম গেম খেলত পার্থ। নিজের দফতরে বসেই চাকরি বিক্রির জাল তৈরি করতেন পার্থ। দুর্নীতির টিম গেমিং এর জন্য পছন্দের একটি টিমও তৈরি করেছিলেন তিনি। 

সিবিআই সূত্রে খবর, তাদের পেশ করার নতুন চার্জশিটে ১৬ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। শুধুমাত্র শিক্ষাক্ষেত্রে নয় বরং শিক্ষা দফতরের আধিকারিকদের নিয়োগের ক্ষেত্রেও দুর্নীতি এবং স্বজনপোষণের অভিযোগ উঠেছে। সিবিআইয়ের পেশ করা নতুন চার্জশিটে এটাও উল্লেখ রয়েছে যে দুর্নীতির পথে কেউ বাধা হয়ে দাঁড়ালে তাঁকে সরিয়ে দেওয়া হত।

সিবিআইয়ের দাবি, শিক্ষক ‌নিয়োগে বেনিয়মের পথ সুগম করতেন স্কুল সার্ভিস কমিশনের প্রাক্তন উপদেষ্টা শান্তি প্রসাদ সিনহা। স্কুল সার্ভিস কমিশনের নিয়ম ভেঙেই সচিব করা হয়েছিল। নিয়োগ সংক্রান্ত রেকমেন্ডেশন লেটারে স্ক্যানড সই ব্যবহার করে, নিজের ওএসডির মাধ্যমে চাকরি প্রার্থীদের তালিকা পাঠাতেন পার্থ। পার্থর সঙ্গে ওএসডির চ্যাট হিস্ট্রি থেকেই এই অভিযোগ, এরকমটাই দাবি করছে সিবিআই। 

সিবিআইয়ের তরফে দাবি করা হয়েছে, দুর্নীতিতে সায় না দেওয়ার কারণে এসএসসির সেন্ট্রাল কমিশনের চেয়ারম্যান শর্মিলা মিত্রকে, এসএসসি প্রাক্তন চেয়ারম্যান সৌমিত্র সরকারকে সরিয়ে স্থানান্তরিত করে দেন পার্থ। পরবর্তীকালে সেই পদে আনা হয়েছিল সুবীরেশ ভট্টাচার্যকে। 

 সিবিআইয়ের তরফে থেকে, ২০১৯ সালের গ্রুপ সির পরীক্ষার সমস্ত উত্তরপত্র নষ্টের অভিযোগও উঠেছে পার্থ চট্টোপাধ্যায় সহ এই টিমের বিরুদ্ধে। ইতিমধ্যেই স্কুল সার্ভিস কমিশনের নবম-দশমের মামলায় ১২ জনের নাম যুক্ত করেছে সিবিআই৷ নবম দশম মামলায় প্রথম চার্জশিট। এর পরবর্তীতে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার তরফে আরও সাপ্লিমেন্টারি চার্জশিট জমা করা হতে পারে। সেই তালিকায় রয়েছে, শান্তিপ্রসাদ সিনহা, অশোক কুমার সাহা, সুবীরেশ ভট্টাচার্য, কল্যাণময় গঙ্গোপাধ্যায়, পর্ণা বসু, সমরজিৎ আচার্য, প্রসন্ন রায়, প্রদীপ সিং, জুঁই দাস, আজাদ আলি মির্জা, ইমাম মোমিন, রোহিত কুমার ঝাঁ। এদের মধ্যে একাধিক জন ইতিমধ্যেই জেল হেফাজতে৷ সিবিআই যেভাবে তৎপরতার সঙ্গে দুর্নীতির বিরুদ্ধে কাজ করছে, সেই অনুযায়ী আগামী দিনে এই তালিকা আরও বাড়তে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

(সব খবর, সঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে পান। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram এবং Facebook পেজ)