সন্তান নিতে মরিয়া অর্পিতার ফ্ল্যাটে কাদের যাতায়াত ছিল?

বিদেশি মুদ্রা লেনদেনে বিশেষ নজর। অর্পিতার ফ্ল্যাটের ভিতর কী হত?

120

নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় পার্থ চট্টোপাধ্যায় (Partha Chatterjee) ও অর্পিতা মুখ্যোপাধ্যায়কে (Arpita Mukherjee) হেফাজতে নেওয়ার ৫৮ দিনের মাথায় চার্জশিট পেশ করেছে (ED) ইডি। এতে বলা হয়েছে অর্পিতা মা হতে চেয়েছিন। তাতে পার্থর কোনও আপত্তি ছিলনা। ইডি খুঁজছে পার্থ ছাড়া আর কার কার সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা ছিল অর্পিতার। কারা গোপনে অর্পিতার ফ্ল্যাটে যেত?

১৭২ পাতার চার্জশিটে একাধিক তথ্য যেমন ইডি তুলে ধরেছে ইডি৷ যেখানে রাজসাক্ষী হওয়ার আবেদন করেছেন অর্পিতা৷ কিন্তু একাধিক তথ্য ও প্রমাণের নির্যাস থেকে উঠে আসছে একাধিক প্রশ্ন৷ যা রাজ্য রাজনীতিতে শোরগোল ফেলে দিয়েছে।

partha arpita

চার্জশিটে ইডির তরফে জানানো হয়েছে, অর্পিতার বাড়িতে বিপুল টাকা উদ্ধার হয়েছে, তা পার্থর বলে দাবি করেছে অর্পিতা৷ একইসঙ্গে চার্জশিটে উল্লেখ রয়েছে, অর্পিতার ফ্ল্যাট থেকে নেপাল, থাইল্যান্ড, বাংলাদেশ, সিঙ্গাপুর, হংকং, মালেয়শিয়া ও আমেরিকার মুদ্রা পাওয়া গেছে। সেই মুদ্রা কার? ইডি সূত্রে খবর, অর্পিতা জানিয়েছেন, সেই মুদ্রা তার নয়, একাধিক সময় একাধিক ব্যক্তি রেখে যেতেন।

এখানেই প্রশ্ন, অর্পিতার ফ্ল্যাটে পার্থ ছাড়া আর কাদের যাতায়ত ছিল? কারা টাকার ভাণ্ডারে বিদেশী মুদ্রা রেখে যেতেন? এর আগেও অর্পিতা দাবি করেছেন, তার ফ্ল্যাটে তারই অজান্তে টাকা রাখা হয়েছিল। কিন্তু কারা টাকা রেখে গিয়েছিল? সেকথা ইডির চার্জশিটে উল্লেখ রয়েছে কি না, তা নিয়ে ক্রমাগত প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।

চার্জশিটে ইডি জানিয়েছে, এই বিপুল টাকার পাহাড়ের বিষয়ে রাজসাক্ষী হওয়ার জন্য আবেদন জানিয়েছে অর্পিতা। কীভাবে এই টাকা এল? কারা এর সঙ্গে যুক্ত? এই টাকা আদৌ নিয়োগ দুর্নীতির কি না, সবটা ইডিকে জানাতে চেয়েছে অর্পিতা।

arpita

অন্যদিকে, মানিক ভট্টাচার্য ও পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের মধ্যে কথোপকথন নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে তদন্তকারী সংস্থার। নিয়োগ নিয়ে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের প্রাক্তন সভাপতি মানিক ভট্টাচার্যের গতিবিধি এখন সিবিআই ও ইডির নজরে৷ যে সমস্ত বিস্ফোরক তথ্য মানিক ভট্টাচার্যের বিরুদ্ধে উঠে এসেছে, তাতে আগামী দিনে তদন্তের ক্ষেত্রে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হবে বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল।