Friday, February 3, 2023

Padma Vibhushan: ডাঃ মহলানবিশের ওআরএস ৭১’এর যুদ্ধে হাজারো জীবন বাঁচিয়েছিল

- Advertisement -

বুধবার সরকার পদ্ম পুরস্কার ঘোষণা করেছে। পশ্চিমবঙ্গের ডাঃ দিলীপ মহলানবিশকে (Dilip Mahalanabis) মরণোত্তর পদ্মবিভূষণের (Padma Vibhushan) জন্য নির্বাচিত করা হয়েছে। ওরাল রিহাইড্রেশন সলিউশন অর্থাৎ ওআরএস ব্যবহারের প্রচারের জন্য ডঃ মহলানবিশকে এই সম্মানে ভূষিত করা হবে। ডাঃ মহলানবিশ গত বছরের অক্টোবরে ৮৭ বছর বয়সে মারা যান।

ওআরএস কতটা গুরুত্বপূর্ণ এবং কেন ডাঃ মহলানবিশকে বেছে নেওয়া হয়েছিল?
ওআরএসকে বিংশ শতাব্দীর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ চিকিৎসা আবিষ্কার হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছে। এটি প্রতি বছর বিশ্বব্যাপী ৫ কোটি মানুষের জীবন বাঁচিয়েছে। ওআরএস একটি সহজ এবং সস্তা, কিন্তু খুব কার্যকর সমাধান। শিশু ও নবজাতকের জীবন বাঁচাতে এর ব্যবহার বিশেষভাবে কার্যকর। ডায়রিয়া, ডিহাইড্রেশন এবং কলেরার কারণে মৃত্যুর ৯৩% হ্রাস ORS ব্যবহারের কারণে।

১৯৭১ সালে যখন বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ চলছিল, তখন বাংলাদেশ থেকে প্রচুর মানুষ পশ্চিমবঙ্গে আসছিল। তাদের জন্য বেশ কয়েকটি শরণার্থী শিবির স্থাপন করা হয়েছিল। তখন এসব ক্যাম্পে কলেরা ছড়িয়ে পড়ে। এতে অনেক উদ্বাস্তু অসুস্থ হয়ে পড়ে। তারপর ডাঃ মহলানবিশ ওআরএস ব্যবহারের প্রচার করে অনেকের জীবন বাঁচিয়েছিলেন।

- Advertisement -

১২ নভেম্বর ১৯৩৪ সালে পশ্চিমবঙ্গে জন্মগ্রহণ করেন৷ ড. মহলানবিশ জনস হপকিন্স ইউনিভার্সিটি ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার ফর মেডিকেল রিসার্চ অ্যান্ড ট্রেনিং-এ ওরাল রিহাইড্রেশন থেরাপি অধ্যয়ন করেন। ১৯৭১ সালের বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের পর, তিনি ১৯৭৫ থেকে ১৯৭৯ সাল পর্যন্ত আফগানিস্তানে WHO-এর পক্ষ থেকে কলেরা নিয়ন্ত্রণ প্রচেষ্টায় জড়িত ছিলেন। পরে তিনি WHO-এর ডায়রিয়া নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচিতেও যুক্ত ছিলেন। ১৯৯৪ সালে তিনি রয়্যাল সুইডিশ একাডেমি অফ সায়েন্সের সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০৬ সালে তাকে ওরাল রিহাইড্রেশন থেরাপির ক্ষেত্রে অবদানের জন্য থাইল্যান্ডের মর্যাদাপূর্ণ প্রিন্স মাহিদোল পুরস্কারে ভূষিত করা হয়।

ওরাল রিহাইড্রেশনের মাধ্যমে হাজার হাজার জীবন বাঁচানো হয়েছে
ডাঃ দিলীপ মহলানবিশ ওরাল রিহাইড্রেশন থেরাপির ক্ষেত্রে তার উল্লেখযোগ্য কাজের জন্য পরিচিত। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় তিনি প্রথম আলোয় আসেন। বনগাঁয় বাংলাদেশি নাগরিকদের শরণার্থী শিবিরে কলেরা রোগ ছড়িয়ে পড়লে। বিপুল সংখ্যক উদ্বাস্তু কলেরার শিকার হয়েছিল। তারপর ডাঃ মহলানবিশ ওরাল রিহাইড্রেশনের মাধ্যমে হাজার হাজার মানুষের জীবন বাঁচিয়েছিলেন।

সে সময় বনগাঁ শরণার্থী শিবিরে স্যালাইনের অভাব ছিল। ডাঃ মহলনবীস চিনি, লবণ ও জলের দ্রবণ তৈরি করে একটি ড্রামে রেখেছিলেন। এর উপযোগিতা সম্পর্কে মানুষকে বোঝানোর জন্য তিনি একে ওরাল স্যালাইন নামে অভিহিত করেন। তিনি শরণার্থী শিবিরে কলেরায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের ক্ষুধার্ত না হওয়া বা দুর্বল বোধ না হওয়া পর্যন্ত জল পান করতে বলেছিলেন। এভাবে তিনি অনেকের কলেরা নিরাময় করেন।

কলেরায় মৃত্যুর হার ৫০ শতাংশ থেকে তিন শতাংশে নেমে এসেছে
১৯৭১ সালে ডাঃ দিলীপ মহলানাবিসের ওরাল রিহাইড্রেশন সলিউশন (ORS) দিয়ে থেরাপি হাজার হাজার যুদ্ধ শরণার্থীর মধ্যে কলেরার মৃত্যুর হার ৫০ শতাংশ থেকে তিন শতাংশে কমিয়ে এনেছে। এই যুদ্ধের পর বাংলাদেশ স্বাধীনতা লাভ করে। ওআরএস তখন থেকে বিশ্বজুড়ে লক্ষ লক্ষ শিশুর জীবন বাঁচিয়েছে।