নামল পারদ, ছুটির দিনে দক্ষিণবঙ্গের ৬ জেলায় ভারী বৃষ্টির সতর্কতা,

নিম্নচাপের দাপটের জেরে শুক্রবার থেকে রাজ্যে শুরু হয়েছে ভারী বৃষ্টি (Heavy Rainfall)। বিগত দুদিন ধরে দফায় দফায় ভারী বৃষ্টি হচ্ছে শহরজুড়ে। শুধু শহর বললে ভুল…

নিম্নচাপের দাপটের জেরে শুক্রবার থেকে রাজ্যে শুরু হয়েছে ভারী বৃষ্টি (Heavy Rainfall)। বিগত দুদিন ধরে দফায় দফায় ভারী বৃষ্টি হচ্ছে শহরজুড়ে। শুধু শহর বললে ভুল হবে, উত্তরবঙ্গ থেকে শুরু করে দক্ষিণবঙ্গের জেলায় জেলায় কিছু অংশে ভারী বৃষ্টিপাত হচ্ছে। তবে আজ রবিবারও পশ্চিমবঙ্গের অধিকাংশ জেলায় ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস দিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর।

 

   

আলিপুর আবহাওয়া দফতরের তরফে বিশেষ করে একটি বুলেটিন জারি করা হয়েছে। আর এই বুলেটিন অনুসারে, উত্তরবঙ্গ থেকে শুরু করে দক্ষিণবঙ্গের বেশিরভাগ জেলায় কখনও ভারী তো আবার কখনও অতি ভারী বৃষ্টিপাতের সতর্কতা জারি করা হয়েছে। বিশেষ করে জলপাইগুড়ি, কোচবিহার, উত্তর দিনাজপুরে ভারী বৃষ্টির (৭-২০ সেমি) জন্য হলুদ সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

 

এর পাশাপাশি পূর্ব ও পশ্চিম বর্ধমান, বীরভূম, মুর্শিদাবাদ, কলকাতা এবং নদিয়া জেলায় হলুদ সতর্কতা জারি করা হয়েছে। এবার আসা যাক উত্তরবঙ্গের কথায়। আজ ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির জন্য কমলা সতর্কতা জারি করা হয়েছে জলপাইগুড়ি, দার্জিলিং এবং আলিপুরদুয়ার জেলায়। 

 

এছাড়া ভারী বৃষ্টির জন্য বাকি জেলা যেমন কালিম্পং, মালদহ এবং দুই দিনাজপুরে হলুদ সতর্কতা জারি করা হয়েছে। আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, “বঙ্গোপসাগরে ঘনীভূত হওয়া নিম্নচাপটি এখন উত্তর ওড়িশা-গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গ উপকূল সংলগ্ন উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে, যার সাথে সম্পর্কিত ঘূর্ণাবর্ত সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৭.৬ কিলোমিটার পর্যন্ত বিস্তৃত। যার দাপটে পশ্চিমবঙ্গের জেলাগুলিতে দু-এক জায়গায় ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।

 

ইতিমধ্যে সমুদ্র উত্তাল হয়ে উঠেছে। ফলে সতর্কতা জারি করা হয়েছে মৎস্যজীবীদের উদ্দেশ্যেও। রবিবার রাত পর্যন্ত  উত্তাল ঢেউয়ের কারণে মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যাওয়া থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।