১৪৪ ধারা ভেঙে ‘বর্ধমান স্টাইলে’ উগ্র হবে CPIM? সিজিও অভিযানে সল্টলেক সরগরম

মঞ্চ করতে দেয়নি পুলিশ

42

আবার বর্ধমান স্টাইলে উগ্র মিছিল সিপিআইএমের? এই প্রশ্নে সরগরম রাজ্য। শুক্রবার সল্টলেক সিজিও কমপ্লেক্স ঘিরে CPIM এর মিছিলে পুলিশের অনুমতি নেই। তবে মিছিল ও জমায়েত হবেই এমনই রোখ নিয়েছে বাম নেতৃত্ব ও সমর্থকরা। দুপক্ষের অনড় মনোভাবে গরম হচ্ছে সিজিও চত্বর।

সম্প্রতি পূর্ব বর্ধমানের সদর শহর বর্ধমানে আইন অমান্য আন্দোলন ঘিরে ধুন্ধুমার কান্ড ঘটেছে। সিপিআইএম সমর্থকরা বিশ্ব বাংলা স্ট্যাচু ভেঙে দেন। হামলা হয়েছিল স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেস বিধায়কের একটি কার্যালয়। এর জেরে দলটির কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা আভাস রায়চৌধুরী সহ কয়েকজন ছাত্র নেতা জেলে আছেন। সেই উগ্র সিপিআইএম রূপ কি এবার সল্টলেকে হবে? রাজনৈতিক মহল সরগরম।

নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দামবৃদ্ধি ও শিক্ষক নিয়োগের পরীক্ষায় সফল হওয়া কর্মপ্রার্থীদের চাকরি দুর্নীতির তদন্ত তরান্বিত করার দাবিতে শুক্রবার সিজিও কমপ্লেক্স অভিযানের ডাক দিয়েছে বাম শিবির। কিন্তু মেলেনি পুলিশের অনুমতি। সিজিও কমপ্লেক্সের সামনে মঞ্চ বাঁধার অনুমতি চাইলে পুলিশ অনুমতি দেয়নি বলে অভিযোগ। বাঁধতে দেওয়া হল না মঞ্চের ব্যাকড্রপ, ছোট মঞ্চ থেকেই সুর চড়াতে চায় সিপিআইএম।

পুলিশ সূত্রে খবর, সিজিও কমপ্লেক্সের সামনে জারি করা হয়েছে ১৪৪ ধারা। সেকারণেই অনুমতি দেওয়া হয়নি। অভিযোগ, এদিন ইন্দিরা ভবনের কাছে মঞ্চ বাঁধতে গেলে বাধা দেয় পুলিশ। সিপিআইএম জানিয়েছে তাদের বলা হয়েছে মঞ্চের পেছনে ব্যাক ড্রপ ব্যবহার করা যাবে না। মঞ্চকে খোলামেলা রাখতে হবে।

সিপিআইএম রাজ্য সম্পাদক মহম্মদ সেলিম এর আগে বর্ধমানের মিছিলে ছিলেন তিনি সিজিও কমপ্লেক্স ঘেরাওতে আছেন। তিনি বলেছেন কোনও বাধা মানা হবে না।

(সব খবর, সঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে পান। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram এবং Facebook পেজ)