Saturday, February 4, 2023

Bangladesh: ঢাকার বিখ্যাত ধানমন্ডি দুর্গাপূজার ‘অনুমতি’ বিতর্ক, গণ-অনশন হুমকি

- Advertisement -

নিউজ ডেস্ক: দুর্গাপূজা করতে না দিলে অনশন হবে। এমনই হুঁশিয়ারিতে বাংলাদেশ সরগরম। ঢাকার বিখ্যাত
ধানমন্ডি সার্বজনীন পূজা উদযাপন কমিটির অভিযোগ, পূজা মন্ডপ তৈরি করতে বাধা দিয়েছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন (DSCC) কর্তৃপক্ষ। যদি পূজা না হয় তাহলে শুরু হবে বিক্ষোভ।

- Advertisement -

ঢাকায়(Dhaka) সাংবাদিক সম্মেলনে এমন ঘোষণা করেন ধানমন্ডি সার্বজনীন পূজা কমিটির সাধারণ সম্পাদক সমেন সাহা। এই হুঁশিয়ারির পরেই তীব্র শোরগোল পড়েছে বাংলাদেশের সর্বত্র। কারণ, ধানমন্ডির দুর্গা মন্ডপ বাংলাদেশের অন্যতম আকর্ষণীয় পূজা প্যন্ডেল হিসেবে পরিচিত। বহু দর্শনার্থী আসেন এই প্যান্ডেল দেখতে।

অভিযোগ, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের অসহযোগিতার কারণে ধানমন্ডির কলাবাগান মাঠে দুর্গাপূজার মন্ডপ তৈরিতে বাধা পড়েছে। ধানমন্ডি পূজা কমিটির হুঁশিয়ারি যদি পূজা করতে না দেওয়া হয় তাহলে ঢাকা সহ সারা দেশে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ, আন্দোলন, সকল পূজা মন্দিরে কালো পতাকা প্রদর্শন ও সেই সঙ্গে গণঅনশন কর্মসূচি পালন করা হবে। 

- Advertisement -

ধানমন্ডি সার্বজনীন পূজা কমিটি জানিয়েছে, আমরা হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা অত্যন্ত দুঃখের সঙ্গে জানাচ্ছি যে, ধানমন্ডির, কলাবাগান, হাজারীবাগ, মোহাম্মদপুর, নিউমার্কেট ও আশপাশের এলাকার বাসিন্দারা ২০০৭ সাল থেকে কলাবাগান ক্রীড়াচক্র মাঠে সার্বজনীন শারদীয় দুর্গাপূজা উদযাপন করে আসছি। এই এলাকার প্রায় ৬০ হাজার হিন্দু অধিবাসীর জন্য কোনও মন্দির না থাকায়, কলাবাগান ক্রীড়াচক্র মাঠেই বিগত ১৪ বছর ধরে সার্বজনীন শারদীয় দুর্গাপূজা উদযাপন করা হচ্ছে। ঐতিহ্যবাহী প্রার্থনীয় এই পূজা সারা দেশে সাতবার প্রথম স্থানও অর্জন করেছে।

দুর্গাপূজা কমিটি আরও জানায়, আমরা বিগত বছরের মতো বাংলাদেশ সরকারের নির্দেশিত সব নিয়মকানুন ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে পূজা উদযাপনের জন্য ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়রের কাছে লিখিত অনুমতি প্রার্থনা করি। কিন্তু এক মাস অতিবাহিত হওয়ার পর বারবার যোগাযোগ করেও কোনও সাড়া পাইনি।

পূজা কমিটির অভিযোগ, গত ২৯ সেপ্টেম্বর মন্ত্রী তাজুল ইসলামের শরণাপন্ন হলে তিনি আমাদের আহ্বানে সাড়া দিয়ে দুই দিনের মধ্যে পূজা উদযাপন করার অনুমতি প্রদান করেন। কিন্তু অনুমতিপত্র থাকার পরও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের অসহযোগিতার কারণে আমরা পূজা উদযাপন করতে পারছি না।  

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের বার্তায় বলা হয়েছে, ‘বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রদান এবং অনাকাঙ্ক্ষিত তথ্য উপস্থাপন করা হয়েছে’। আরও জানানো হয়, “এ ধরনের বিদ্বেষমূলক বক্তব্যে আমরা খুবই মর্মাহত। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ‘বাংলাদেশ’ আজ যখন  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সারা বিশ্বে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির উজ্জ্বল ও অনন্য উদাহরণ হিসেবে বিবেচিত, তখন এ ধরনের বক্তব্য স্বার্থন্বেষী মহলের ব্যবসায়িক উদ্দেশ্য সাধন এবং চাঁদাবাজির অভিলাষ পূরণের নামান্তর।”  

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের যুক্তি,‘পূজা উদ্‌যাপন কমিটি কর্তৃক পূজা উদ্‌যাপনকালে কলাবাগান ক্রীড়াচক্র মাঠ এবং মাঠের স্থাপনাসমূহের কোনো প্রকার ক্ষয়ক্ষতি/বিনষ্ট না হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে’—এমন শর্তসাপেক্ষে পূজা আয়োজনের অনুমতি প্রদান করার বিষয়টি সংবাদ সম্মেলনে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উল্লেখ করেননি।