লখিমপুর খেরি কাণ্ডে তদন্ত কমিশনের প্রধানকেই সরিয়ে দিল যোগী সরকার

203
Yogi into the Lakhimpur Kheri

নিউজ ডেস্ক: উত্তরপ্রদেশের লখিমপুর খেরি (Lakhimpur Kheri) কাণ্ডে তদন্ত করছে বিশেষ ইনভেস্টিগেশন টিম বা সিট। যার নেতৃত্ব দিচ্ছেন ডিআইজি উপেন্দ্র কুমার আগারওয়াল।

শুক্রবার উত্তরপ্রদেশের যোগী আদিত্যনাথ সরকার এক নির্দেশে সিট প্রধান উপেন্দ্র কুমারকে বদলি করে দিয়েছে। লখিমপুর জায়গাটি লখনউ রেঞ্জের মধ্যে পড়ে। কিন্তু সিট প্রধান উপেন্দ্র কুমারকে বদলি করা হয়েছে গোন্ডা রেঞ্জে।

তবে সরকারের দাবি, উপেন্দ্র কুমার সিটপ্রধান হিসেবেই লখিমপুর খেরির তদন্ত করবেন। ইতিমধ্যেই এই মামলায় কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর ছেলে-সহ ১০ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, লখিমপুরে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর ছেলে আশিসের গাড়ির ধাক্কায় ৪ কৃষক-সহ ৮ জনের মৃত্যু হয়। ওই ঘটনার তদন্ত করছে সিট। সিটের নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন রাজ্য পুলিশের ডেপুটি ইন্সপেক্টর জেনারেল উপেন্দ্র কুমার। ২০০৫ ব্যাচের আইপিএস আধিকারি উপেন্দ্র কুমারকে এবার সরিয়ে দিল যোগী প্রশাসন। এদিন রাজ্য পুলিশের অতিরিক্ত ডিরেক্টর জেনারেল প্রশান্ত কুমার জানিয়েছেন, বদলি করা হলেও সিটের প্রধান হিসেবেই এই মামলার তদন্ত করবেন উপেন্দ্র কুমার আগারওয়াল।

লখিমপুরের মত এত বড় একটি ঘটনার যিনি তদন্ত করছেন হঠাৎ করে কেন তাঁকে সরিয়ে দেওয়া হল ইতিমধ্যেই তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। বিরোধীদের অভিযোগ এই মামলায় মন্ত্রীর ছেলেকে গ্রেফতার করে যোগী সরকারের বিষ নজরে পড়েন উপেন্দ্র। তাই এই মামলার তদন্তভার উপেন্দ্রর হাতে থাকলে আগামী দিনে আরও বড় কোনও দুর্ঘটনা ঘটে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। সে কারণেই তাঁকে তড়িঘড়ি বদলি করা হল। এখনও তিনি সিট প্রধান থাকলেও আগামী দিনে তাঁকে সেই পদ থেকে সরানো হবে বলে রাজনৈতিক মহলের আশঙ্কা।

৩ অক্টোবর লখিমপুরে মন্ত্রীর ছেলের গাড়ির ধাক্কায় ৪ কৃষক-সহ ৮ জনের মৃত্যুর প্রায় এক সপ্তাহ পর অভিযুক্ত আশিস মিশ্রকে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। ওই ঘটনায় মন্ত্রীর ছেলের নাম জড়ানোর পর থেকেই লখিমপুরের ঘটনা বিশেষ মাত্রা পায়। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অজয় মিশ্র অবশ্য লখিমপুরের ঘটনায় তাঁর ছেলের জড়িত থাকার অভিযোগ বরাবরই অস্বীকার করেছেন।

২৬ অক্টোবর লখিমপুর মামলার পরবর্তী শুনানি হবে। ওই দিন যোগী সরকারকে সর্বোচ্চ আদালতের কাছে লখিমপুর নিয়ে রিপোর্ট পেশ করতে বলা হয়েছে। ওই রিপোর্টে এখনও পর্যন্ত কতজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে কি কারণে গ্রেফতার করা হয়েছে সে সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানাতে নির্দেশ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। একই সঙ্গে এই ঘটনায় সমস্ত সাক্ষীর বয়ান রেকর্ড করে তা পেশ করার নির্দেশও দিয়েছে সর্বোচ্চ আদালত।