Friday, February 3, 2023

Corona Vaccine: ২৬ জানুয়ারি লঞ্চ হবে করোনা নেজাল ভ্যাকসিন, জানুন বিস্তারিত

- Advertisement -

বিশ্বব্যাপী করোনা রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধির মধ্যে ভারতের জন্য সুখবর। প্রজাতন্ত্র দিবসে অর্থাৎ ২৬ জানুয়ারি নাকের মাধ্যমে দেওয়া প্রথম করোনার ভ্যাকসিন (Corona Vaccine) দেশে চালু হবে। ভারত বায়োটেক তার ইন্ট্রানাসাল কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন INCOVACC চালু করবে। কোম্পানির চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক কৃষ্ণ এলা শনিবার এ তথ্য জানান। কৃষ্ণা এলা গরু এবং অন্যান্য গবাদি পশুকে প্রভাবিত করে এমন গলদা চর্মরোগের জন্য দেশীয় ভ্যাকসিন Lumpi-Provakind চালু করার কথাও বলেছেন। আগামী মাসের মধ্যে এটি চালু হতে পারে।

নাকের টিকা কি? এই ভ্যাকসিন কতটা কার্যকর? নাকের টিকা বাজারে কতটা পাওয়া যাবে? এটা কিভাবে প্রস্তুত করা হয়?
ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটি স্কুল অফ মেডিসিন (ডব্লিউইউএসএম) এর সহযোগিতায় ভারত বায়োটেক দ্বারা নেজাল ভ্যাকসিন তৈরি করা হয়েছে। ভারত বায়োটেক করোনার প্রথম দেশীয় ভ্যাকসিন কোভ্যাক্সিনও তৈরি করেছিল। ভারত বায়োটেক এই নেজাল ভ্যাকসিনের নাম দিয়েছে iNCOVACC। আগে এর নাম ছিল BBV154।

এই টিকা নাক দিয়ে শরীরে পৌঁছে দেওয়া হয়। এই ভ্যাকসিন শরীরে প্রবেশ করার সাথে সাথে করোনার সংক্রমণ এবং সংক্রমণ উভয়ই ব্লক করে দেয়।
এই নাকের টিকা একটি বুস্টার ডোজ হিসাবে পরিচালিত হচ্ছে। তাই একে ইন্ট্রানাসাল ভ্যাকসিন বলা হয়। অর্থাৎ, এটি ইনজেকশন দিয়ে দেওয়ার দরকার নেই, বা এটি মুখে দেওয়া ভ্যাকসিনের মতো দেওয়া হয় না। এটা নেজাল স্প্রে মত ধরনের.

- Advertisement -

নাকের টিকা কিভাবে কাজ করে?
ডাঃ ভারত ভূষণ বলেন, ‘করোনাভাইরাসসহ অনেক মাইক্রোস্কোপিক ভাইরাস মিউকোসার মাধ্যমে শরীরে প্রবেশ করে। নাকের টিকা সরাসরি মিউকোসায় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। এটি শরীরের ভিতরে ভাইরাস প্রবেশ রোধ করতে পারে।

ডক্টর ভরতের মতে, ‘নাকের টিকা শরীরে ইমিউনোগ্লোবিউলিন A (igA) তৈরি করে। প্রাথমিক পর্যায়ে IGA সংক্রমণ প্রতিরোধ করা ভাল। নাকের টিকা এটি করতে কার্যকর প্রমাণিত হয়। এই ভ্যাকসিন সংক্রমণ প্রতিরোধ করার পাশাপাশি অন্যদের মধ্যে ছড়াতে বাধা দেয়।

ডক্টর ভরত আরও বলেন, এ পর্যন্ত দেশে আটটি ভ্যাকসিনের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এগুলো সবই ইনজেকশনের মাধ্যমে মানবদেহে দেওয়া হয়। কিন্তু iNCOVACC একটি ইন্ট্রানাসাল ভ্যাকসিন। এটি নাক দিয়ে দেওয়া হয়। ইনজেকশন দ্বারা দেওয়া ভ্যাকসিন সাধারণত দুইবার দেওয়া হয়, কিন্তু iNCOVACC শুধুমাত্র একবার দেওয়া হবে। এর মাত্র একটি ডোজ খুবই নিরাপদ বলে মনে করা হয়। নাকের টিকা ১৪ দিনের মধ্যে প্রভাব দেখাতে শুরু করে। এটি শুধু করোনাভাইরাস থেকে রক্ষা করবে না, রোগের বিস্তার রোধ করবে। এমনকি রোগীর মধ্যে হালকা লক্ষণও দেখা যাবে না। শরীরে ভাইরাস প্রবেশ করলেও শরীরের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের তেমন ক্ষতি হবে না। তিনি বলেন, এই নাকের টিকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও অন্যদের তুলনায় কম।

চার ফোঁটা নাক দিয়ে দিতে হবে
স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, নাকের টিকা এখন বুস্টার ডোজ হিসেবে দেওয়া হবে। অর্থাত্ যারা কোভ্যাক্সিন বা কোভিশিল্ডের দুটি ডোজ পেয়েছেন, তাদের এই অনুনাসিক ভ্যাকসিনটি বুস্টার ডোজ হিসাবে দেওয়া হবে। যদিও যারা ভ্যাকসিনের একটি ডোজও পাননি, তবে এটি প্রাথমিক ভ্যাকসিন হিসাবেও দেওয়া যেতে পারে। এর চার ফোঁটা প্রত্যেককে দেওয়া হবে। মানে দুই ফোঁটা নাকের ছিদ্রে ফেলতে হবে। কোম্পানির পক্ষ থেকে, এই নাকের টিকা সরকারকে প্রতি শটে 325 টাকা এবং বেসরকারি টিকা কেন্দ্রগুলিকে প্রতি শটে 800 টাকায় দেওয়া হবে।