18 C
Kolkata
Sunday, February 5, 2023

ISRO: আজই উৎক্ষেপণ ওশেনস্যাট ও ৮ টি উপগ্রহ

- Advertisement -

ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ISRO এর বিজ্ঞানীরা শনিবার অর্থাৎ আজ শ্রীহরিকোটার মহাকাশ বন্দর থেকে PSLV-C54 রকেটে পৃথিবী পর্যবেক্ষণ উপগ্রহ ‘ওশেনস্যাট’ ও আরও আটটি গ্রাহক উপগ্রহ উৎক্ষেপণ করতে চলেছেন। এরজন্য শুক্রবার থেকেই শুরু হয়ে গিয়েছে কাউন্টডাউন।

- Advertisement -

পোলার স্যাটেলাইট লঞ্চ ভেহিকেল (PSLV) এর বর্ধিত সংস্করণে (PSLV-XL) এর ৫৬ তম ফ্লাইটের ২৫-৩০ ঘন্টার কাউন্টডাউন আজ শনিবার সকাল ১১ টা বেজে ৫৬ মিনিটে চেন্নাই থেকে ১১৫ কিলোমিটার দূরে শ্রীহরিকোটা সতীশ ধাওয়ান স্পেস সেন্টারে প্রথম লঞ্চপ্যাড থেকে নির্ধারিত লিফ্ট-অফের জন্য ১০ টা বেজে ২৬ মিনিটে শুরু হয়েছে।

- Advertisement -

 রকেটের প্রাথমিক পে-লোড হল একটি ওশানস্যাট যা কক্ষপথ-১ এ আলাদা করা হবে। অন্য আটটি ন্যানো-স্যাটেলাইট গ্রাহকের প্রয়োজনীয়তার ভিত্তিতে সূর্য-সিঙ্ক্রোনাস মেরু কক্ষপথের মতো বিভিন্ন কক্ষপথে স্থাপন করা হবে। প্রাথমিক পেলোড-সহ নয়টি উপগ্রহ ৪৪.৪ মিটার উঁচু PSLV-C54-এ পিগিব্যাক চালাবে যার ভর ৩২১ টন। এটি PSLV-XL সংস্করণের ২৪ তম ফ্লাইট।

এই মিশনটি ISRO বিজ্ঞানীদের দ্বারা পরিচালিত সবচেয়ে দীর্ঘতম মিশনগুলির মধ্যে একটি যা PSLV-C54 লঞ্চ ভেহিকেলে ব্যবহৃত টু-অরবিট চেঞ্জ থ্রাস্টার (OCTs) ব্যবহার করে কক্ষপথ পরিবর্তন করতে রকেটকে নিযুক্ত করবে। আর্থ অবজারভেশন স্যাটেলাইট ১ নম্বর কক্ষপথে এবং যাত্রীদের পেলোডগুলি ২ নম্বর কক্ষপথে আলাদা হবে বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। আর্থ অবজারভেশন স্যাটেলাইটটি নিক্ষেপের প্রায় ২০ মিনিট পরে তা যখন প্রায় ৭৪২ কিলোমিটার উচ্চতায় পৌঁছে যাবে, তারপর তা স্থাপন করা হবে।

ISRO জানিয়েছে, প্রাথমিক উপগ্রহ পৃথকীকরণের পর, প্রথম যাত্রী স্যাটেলাইট স্থাপনের জন্য গাড়িটিকে ৫১৬ কিলোমিটার উচ্চতায় নামিয়ে আনা হবে। শেষ পেলোড বিচ্ছেদটি ৫২৮ কিলোমিটার উচ্চতায় ঘটবে বলে আশাবাদী বিজ্ঞানীরা।

ওশেনস্যাট ছাড়া যে ৮টি উপগ্রহ নিক্ষেপণ করা হবে সেগুলি সম্পর্কে বিস্তারিত:

  • আর্থ অবজারভেশন স্যাটেলাইট-৬ হল ওশানস্যাট সিরিজের তৃতীয় প্রজন্মের উপগ্রহ। এটি বর্ধিত পেলোড স্পেসিফিকেশনের দ্বারা ওশেনস্যাট-২ মহাকাশযানের ধারাবাহিকতা পরিষেবা প্রদান ও পাশাপাশি অ্যাপ্লিকেশন এলাকাগুলিতে পরিষেবা প্রদানের জন্য কাজে লাগানো হবে। অপারেশনাল অ্যাপ্লিকেশনগুলিকে টিকিয়ে রাখার জন্য সমুদ্রের রঙ এবং বায়ু ভেক্টর ডেটার ধারাবাহিকতা নিশ্চিত করাই এই মিশনের উদ্দেশ্য।
  • গ্রাহক পেলোডের মধ্যে রয়েছে ভুটানের জন্য ISRO ন্যানো স্যাটেলাইট-2 (INS-2B) যার দুটি পেলোড থাকবে,যা NanoMx এবং APRS-Digipeater। NanoMx হল একটি মাল্টিস্পেকট্রাল অপটিক্যাল ইমেজিং পেলোড যা স্পেস অ্যাপ্লিকেশন সেন্টার দ্বারা তৈরি করা হয়েছে। অন্যদিকে, APRS-Digipeater পেলোড যৌথভাবে ভুটানের তথ্য প্রযুক্তি ও টেলিকম বিভাগ এবং ইউআর রাও স্যাটেলাইট সেন্টার, বেঙ্গালুরু দ্বারা তৈরি করা হয়েছে।
  • ‘আনন্দ’ স্যাটেলাইটটি তৈরি করেছে পিক্সেল। এটি একটি প্রযুক্তি প্রদর্শনকারী যা নিম্ন পৃথিবীর কক্ষপথে একটি মাইক্রো-স্যাটেলাইট ব্যবহার করে পর্যবেক্ষণের জন্য ক্ষুদ্র আর্থ পর্যবেক্ষণ ক্যামেরার ক্ষমতা এবং বাণিজ্যিক প্রয়োগ প্রদর্শন করে। 
  • ‘থাইবোল্ট’ (২ টি উপগ্রহ) আরেকটি মহাকাশ স্টার্ট আপ ধ্রুব স্পেস থেকে এসেছে।
  •  অ্যাস্ট্রোকাস্ট হল স্পেসফ্লাইট, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে পেলোড হিসাবে ইন্টারনেটের জিনিসগুলির জন্য একটি প্রযুক্তি প্রদর্শনকারী উপগ্রহ।