Friday, February 3, 2023

দুর্নীতিতে জর্জরিত তৃ়ণমূলের ভোট প্রচারে মমতা দেবেন ‘সুশাসন’ বার্তা

- Advertisement -

কুশাসন থেকে সুশাসনে ফিরে আসুন। পশ্চিমবঙ্গে সরকারি প্রকল্পগুলির মতো সুবিধা পেতে তৃ়ণমূল কংগ্রেসকেই (TMC) ভোট দিন। এমনই আঙ্গিকে দলীয় প্রার্থীদের হয়ে ভোট প্রচার শুরু করতে চলেছেন (Mamata Banerjee) মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে বাংলায় নয়, বাংলাভাষী প্রধান ত্রিপুরা বিধানসভা নির্বাচনে (Tripura Election 2023) এরকমই প্রচার কৌশল নিতে চলেছে তৃণমূল কংগ্রেস। আগামী ৬-৭ ফেব্রুয়ারি প্রচারে অংশ নেবেন মমতা।

  • মুকুল রায়ের সূত্র যেই বিজেপি সেই তৃণমূল।
  • মুকুল সূত্র মেনেই দরজা খোলা রাখছে ত্রিপুরা প্রদেশ তৃণমূল।
  • ত্রিপুরায় ভোট প্রচারে পশ্চিমবঙ্গের লাগাতার কেলেঙ্কারি সংক্রান্ত কঠিন প্রশ্নের মুখে পড়তে চলেছেন মমতা।

পশ্চিমবঙ্গে তিনবার সরকার গড়া তৃণমূল কংগ্রেসে দুর্নীতিতে জর্জরিত। গোরু পাচার, শিক্ষা দফতরে বেআইনি নিয়োগ, কেন্দ্র সরকারের আবাস যোজনা প্রকল্পের দুর্নীতির ধাক্কা সামলালে গিয়ে ‘দিদির দূত’ কর্মসূচিতে নেমে বিক্ষোভ, ঘেরাও ও তাড়া খাচ্ছেন তৃণমূল সাংসদ-বিধায়ক ও নেতারা। গ্রামে গ্রামে চড়ছে ক্ষোভের আগুন। পঞ্চায়েত ভোটের আগে তীব্র জনবিক্ষোভের মুখে তৃণমূল কংগ্রেস। এই পরিস্থিতিতে ত্রিপুরায় গিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরাসরি বিজেপির কুশাসন থেকে তৃণমূল কংগ্রেসের সুশাসনের দাবি করবেন। ত্রিপুরা প্রদেশ তৃণমূল সূত্রে খবর, দুদিন টানা প্রচার করবেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, পশ্চিমবঙ্গে কোটি কোটি টাকার নিয়োগ দুর্নীতি ও বিপুল পরিমান অর্থের গোরু পাচার দুর্নীতির খবর ত্রিপুরাবাসীর অজানা নয়। এই অবস্থায় তৃণমূল নেত্রী ‘সুশাসন’ দাবি করার পর তাঁর রাজ্যের পরিস্থিতি বুমেরাং হয়ে তাঁর দিকেই কঠিন প্রশ্ন হয়ে আসতে চলেছে।

- Advertisement -

ত্রিপুরা প্রদেশ তৃণমূল সূত্রে খবর, পশ্চিমবঙ্গে কন্যাশ্রী, কৃষকবন্ধু প্রকল্পগুলির সুবিধা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর প্রচারে আনতে চলেছেন। সূত্রের খবর, ত্রিপুরায় শাসক বিজেপির হেভিওয়েট নেতা ও মন্ত্রীদের অনেকেই প্রার্থী টিকিট পাবেন না। তারা তৃণমূলের হয়ে ভোটে দাঁড়াতে পারেন। এদের জন্য দুয়ার খোলা বলেই জানাচ্ছেন প্রদেশ তৃণমূল কংগ্রেস নেতারা।

বিদ্রোহী বিজেপি নেতারা অনেকেই তৃণমূল শীর্ষ নেতাদের সাথে যোগাযোগ করেছেন বলে জানা যাচ্ছে। টিকিটের বিষয়ে দু তরফে চলছে আলোচনা। তবে তৃণমূল কংগ্রেস ত্রিপুরায় কোনও জোট শরিক পাচ্ছে না। সেক্ষেত্রে তারা একলা লড়াই করবে বলেই জানা যাচ্ছে।