উদয়ন এবং কেষ্ট সেম ক্যাটাগরির: দিলীপ ঘোষ

13
  • বিজেপি সর্বভারতীয় সহ সভাপতি দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh) নিশানায় দুই হেভিওয়েট তৃ়ণমূল নেতা
  • কোচবিহারে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর উপর হামলার অভিযোগে দিল্লি সরগরম

কোচবিহারে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী নিশীথ প্রামাণিকের ওপর হামলার ঘটনায় অভিযুক্ত তৃ়ণমূল কংগ্রেস। সিতাইতে এই ঘটনার পর বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষ হয় তৃ়ণমূল ও বিজেপির মধ্যে। সিসিটিভি ফুটেজ দেখিয়ে তৃণমূলের। কোচবিহার জেলা সভাপতি অভিজিৎ দে ভৌমিকের দাবি, নিশীথের কনভয়ে থাকা বাইকগুলো থেকেই হামলা চালানো হয়েছে। নিশীথ প্রামাণিক হঠাৎ করেই এই কর্মসূচি নিয়ে পরিকল্পিত ভাবেই এই কাজ করেছেন।

বৃহস্পতিবারের ঘটনার পর নিশীথ বলেন মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে রাজ্যে প্রশাসন ভেঙে পড়েছে। আর উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী উদয়ন গুহ আগেই গোঁফ দাড়ি উপড়ে নেওয়ার গরম বার্তা দিয়ে বিতর্ক তৈরি করেছেন।

উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী উদয়ন গুহর হুঁশিয়ারির পরেই নিশীথের ওপর হামলার অভিযোগ বিজেপির। এবার উদয়নের বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সহ সভাপতি দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh)। উদয়ন এবং কেষ্ট সেম ক্যাটাগরির, দাবি করলেন তিনি।

শুক্রবার দিলীপ ঘোষ বলেন, সারা পশ্চিমবঙ্গ ধীরে ধীরে উপদ্রুত এলাকা হয়ে যাচ্ছে। এখানকার বীরভূমের অনুব্রত, ওখানে কোচবিহারের উত্তরবঙ্গ উন্নয়নমন্ত্রী উদয়ন গুহ, তাঁরা হচ্ছেন সেম ক্যাটাগরির লোক। আমাদের এখানে প্রথমবার হচ্ছে না, তাঁর ওপর হামলা হয়েছিল।

দিলীপ ঘোষ আরও বলেন, দেশের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী তাঁরও কোন সুরক্ষা নেই, তিনি আমাদের কর্মীদের সঙ্গে দেখা করতে এসেছিলেন, রাস্তায় বোম মারা হয়েছে। পশ্চিমবঙ্গে আদৌ সরকার আছে কিনা বোঝা যায় না।

বৃহস্পতিবীর সিতাইয়ে বিজেপি কর্মীদের সঙ্গে দেখা করতে যাচ্ছিলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নিশীথ প্রামাণিক। সেই সময় তাঁর ওপর হামলা চালানোর অভিযোগ ওঠে বিজেপির বিরুদ্ধে। সেই প্রসঙ্গে নিশীথ বলেন, এটা আমাদের নির্ধারিত কর্মসূচি ছিল। ভোটের পর যে সমস্ত কর্মীরা তৃণমূলের দ্বারা আক্রান্ত হয়েছেন, তাঁদের পাশে দাঁড়াতেই আমরা এখানে এসেছিলাম। কিন্তু তৃণমূলের সাংগঠনিক ভিত নেই। তারা মানুষকে ভয় দেখাচ্ছে।

এরপরেই তৃণমূলের বিরুদ্ধে সুর চড়িয়ে তিনি বলেন, হামলা করা তৃণমূলের সংস্কৃতি। তৃণমূলের গুন্ডারা জানে না, আমার মুখোমুখি হলে কী সমস্যা হতে পারে। আমরা প্রশাসনিকভাবে এর মোকাবিলা করব। পুলিশের একটা অংশ তৃণমূ্লের দলদাসে পরিণত হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশেই পুরো প্রশাসনিক ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে। প্রশাসনকে নিরপেক্ষভাবে কাজ করা উচিত।এমনকি এই ঘটনায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের কাছে রিপোর্ট পাঠাবেন তিনি।

(সব খবর, সঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে পান। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram এবং Facebook পেজ)