Kashmir: কাশ্মীরে চলবে আরও হত্যালীলা, হুমকি ইসলামিক স্টেটের

191
More killings in Kashmir, threat of Islamic State

নিউজ ডেস্ক, নয়াদিল্লি: আগামী দিনে কাশ্মীরে আরও বেশি হত্যালীলা চলবে বলে স্পষ্ট হুঁশিয়ারি দিল ইসলামিক স্টেট খোরাসান জঙ্গিগোষ্ঠী। আইএসকের ভারতে ‘ভয়েস অফ হিন্দ’ নামে একটি মুখপত্র রয়েছে। সেই পত্রিকাতেই জঙ্গিগোষ্ঠী এই হুমকি দিয়েছে।

সম্প্রতি কাশ্মীরে জঙ্গিদের সক্রিয়তা অনেক বেড়েছে। বর্তমানে ভূস্বর্গে সাধারণ নিরীহ মানুষকে নিশানা করছে জঙ্গিরা। বিশেষ করে ভিন রাজ্য থেকে আসা শ্রমিকদের তারা একের পর এক খুন করে চলেছে। গত ১০ দিনে উপত্যকার পরিস্থিতি এতটাই অবনতি হয়েছে যে, পরিযায়ীদের শ্রমিকরা সকলেই প্রাণ বাঁচাতে ঘরে ফিরতে উদ্যোগী হয়েছেন।

জঙ্গি গোষ্ঠীর মুখপত্রে একটি ছবি ছাপা হয়েছে। সেখানে দেখা যাচ্ছে এক হকারকে পিছন থেকে গুলি করে খুন করা হচ্ছে। ছবির ক্যাপশনে লেখা হয়েছে, ‘ উই আর কামিং’। উল্লেখ্য, ২০২০ সাল থেকে জঙ্গি সংগঠনটি ভারতে তাদের মুখপত্র ‘ভয়েস অফ হিন্দ’ প্রকাশ করছে। গত এক বছরে ভারতে আইএস খোরাসান জঙ্গিগোষ্ঠীর সংগঠন যথেষ্টই বেড়েছে।

এরই মধ্যে জম্মু-কাশ্মীর নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন কাশ্মীরের প্রাক্তন রাজ্যপাল সত্যপাল মালিক। কাশ্মীরের প্রাক্তন রাজ্যপাল বলেছেন, তাঁর আমলে জঙ্গিরা শ্রীনগরের ৫০ কিলোমিটারের মধ্যে আসার সাহস পেত না। তিনি যখন কাশ্মীরের রাজ্যপাল ছিলেন সে সময় পাথর ছোড়ার ঘটনা না ভাবাই যেত না। কোনও জঙ্গির হাতে কারও মৃত্যু হত না। কিন্তু এখন সেখানে জঙ্গিরা প্রকাশ্যেই নিরীহ মানুষকে খুন করছে। কাশ্মীরে যেভাবে ভিন রাজ্যের নিরীহ মানুষ একের পর এক খুন হচ্ছেন তা অত্যন্ত বেদনাদায়ক। উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের অগাস্ট থেকে ২০১৯ সালের অক্টোবর পর্যন্ত জম্মু-কাশ্মীরের রাজ্যপাল হিসেবে নিযুক্ত ছিলেন সত্যপাল। তাঁর সময়ে জম্মু কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা লোপ করেছিল নরেন্দ্র মোদি সরকার

আফগানিস্তান তালিবানের দখলে যাওয়ার পর কাশ্মীরে জঙ্গিদের সক্রিয়তা বেশ বেড়েছে। একদিকে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় পাক জঙ্গিদের সঙ্গে নিয়মিত সেনা বাহিনীর সংঘর্ষ চলছে। অন্যদিকে কাশ্মীরের খুন করা হচ্ছে নিরীহ মানুষকে। গত ১০ দিনে কাশ্মীরে ১১ জন খুন হয়েছেন। যাদের মধ্যে বেশিরভাগই ভিন রাজ্যের শ্রমিক। এই অবস্থায় আইএসকের এই হুমকিকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে। এই জঙ্গি গোষ্ঠীর মোকাবিলা করতে তাই নিরাপত্তা বাহিনীকে আরো সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়েছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। শুধু সেনাবাহিনী নয়, রাজ্য পুলিশকেও আরও সতর্ক ও সক্রিয় হওয়ার জন্য কেন্দ্রের পক্ষ থেকে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।