BJP: নেই সংগঠন, বিজেপির বাংলা বনধ শুরুতেই ফ্লপ

54

উত্তরের রাজধানী শিলিগুড়ি থেকে দক্ষিণের আসানসোল সংগঠন কীভাবে ভেঙে পড়েছে তা স্পষ্ট হয়ে গেল বিজেপির (BJP) ডাকা সোমবারের বাংলা বনধে। শাসকদল টিএমসির দাবি, সিপিআইএম বনধ ডাকলে তবু মাঠে রাস্তায় বনধ রুখতে নামতে হয়, বিরোধী দল হিসেবে বিজেপি ক্রমে হাস্যকর হয়ে যাচ্ছে। পুরভোটে তারা বিলীন হয়ে যাবে।

রবিবার রাজ্যের ১০৮টি পুরসভার ভোটে ব্যাপক সন্ত্রাস ও বুথ লুঠের ঘটনায় তীব্র উত্তপ্ত রাজনৈতিক মহল। তবে টিএমসির দাবি, তেমন কিছু হয়নি। কিছু বিক্ষিপ্ত ঘটনা ঘটেছে। আর রিগিং প্রতিবাদে ভোট শেষ হতেই বিরোধী দল বিজেপি ১২ ঘণ্টার বাংলা বনধ ডেকে দেয়। তড়িঘড়ি এই সিদ্ধান্তে রাজ্যবাসী হতচকিত হন। তবে রাতেই রাজ্য সরকার জানায় সবকিছু স্বাভাবিক থাকবে।

বিজেপির বাংলা বনধ চিত্র হিসেবে মহানগর,শহরতলী, জেলা, মফস্বল, গ্রামাঞ্চলের যে ছবি এসেছে তাতে স্পষ্ট সাংগঠনিক দূর্বলতা তীব্র। রাজ্য বিজেপি সভাপতি সুকান্ত মজুমদার, বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী, সাংসদ ও বিজেপির সর্বভারতীয় সহ সভাপতি দিলীপ ঘোষ দাবি করেছেন ভোট লুঠের টিএমসি চক্রাম্তকে রুখতে রাজ্যবাসী বনধ করবেন।

তাৎপর্যপূর্ণ, কংগ্রেস সাংসদ অধীর চৌধুরী জানান, এই বনধের ইস্যুকে সমর্থন করছি। সিপিআইএমের তরফে জানানো হয়েছে, ভোট লুঠের প্রতিবাদে কমিশনে ঘেরাও করা হবে।

সকাল থেকে সবই স্বাভাবিক। বিরোধী দলের বনধ কার্যত ব্যর্থ। ট্রেন, বাস সবই স্বাভাবিক। নিত্য যাত্রীদের ভিড় আছে। অফিস বাজার সব খোলা।

(সব খবর, সঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে পান। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram এবং Facebook পেজ)