Saturday, February 4, 2023

Mumbai: বহুতলে বিধ্বংসী আগুন, কার্নিস থেকে পড়ে মৃত এক যুবক

- Advertisement -

নিউজ ডেস্ক: ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড দক্ষিণ মুম্বইয়ের (Mumbai) এক বহুতলে। বুধবার দুপুর সাড়ে বারোটা নাগাদ দক্ষিণ মুম্বইয়ের লালবাগ এলাকায় অভিজ্ঞা পার্ক সোসাইটির ৬০ তলা বহুলটিতে আগুন লাগে। ওই আবাসনের ১৯ তলায় প্রথমে আগুন লাগে। কিছুক্ষণের মধ্যেই সেই আগুন আবাসনের ১৭ তলা থেকে ২৫ তলা পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়ে। আগুন নেভাতে ঘটনাস্থলে গিয়েছে দমকলের ৩০টি ইঞ্জিন।

- Advertisement -

ওই বহুতলে আগুন লাগার সঙ্গে সঙ্গে গোটা এলাকাটি কালো ধোঁয়ায় ঢেকে যায়। আগুনের হাত থেকে বাঁচার জন্য এক যুবক দ্রুত নামার চেষ্টা করতে গিয়ে পড়ে যান। সঙ্গে সঙ্গেই ওই যুবকের মৃত্যু হয়।

দমকল কর্মীদের আশঙ্কা, ওই বহুতলে বহু মানুষ আগুনের ফলে আটকে পড়েছেন। তাঁদের দ্রুত উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। দমকলের ৩০টি ইঞ্জিন যুদ্ধকালীন তৎপরতায় আগুন নেভানোর কাজ করছে। ইতিমধ্যেই আগুন নেভানোর কাজ তদারকির জন্য ঘটনাস্থলে গিয়েছেন মুম্বইয়ের মেয়র কিশোরী পেডনেকর।

- Advertisement -

দমকল বাহিনী জানিয়েছে, শুক্রবার দুপুর সাড়ে বারোটা নাগাদ আচমকাই বহুতলের ১৯ তলা থেকে গল গল করে কালো ধোঁয়া বের হতে দেখা যায়। কিছুক্ষণ পরেই দেখা যায় ১৯ তলাটি দাউদাউ করে জ্বলছে। আগুন ক্রমশ আবাসনের উপর ও নিচ দুইদিকেই ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে। স্বাভাবিকভাবেই এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ১৭ থেকে ২৫ তলার মধ্যে বসবাস করা হয় বহু মানুষ আটকে পড়েছেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। শেষ পাওয়া খবরে জানা গিয়েছে, অরুণ তিওয়ারি নামে এক যুবক প্রাণ বাঁচাতে কার্নিশের উপরে গিয়ে দাঁড়ান। কিন্তু হঠাৎই হাত ফসকে তিনি নিচে পড়ে যান। দমকল কর্মীরা সঙ্গে সঙ্গেই ওই আহত ব্যক্তিকে কেইএম হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

আগুনের হাত থেকে প্রাণে বাঁচতে ওই যুবক তড়িঘড়ি বারান্দা টপকে কার্নিশ বেয়ে নিচে নামার চেষ্টা করছিলেন বলে জানা গিয়েছে। জনবহুল ওই এলাকায় ইতিমধ্যেই আশেপাশের মানুষকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। দমকলের ইঞ্জিন যাওয়ার রাস্তা করে দিতে ইতিমধ্যেই কারি রোডের রাস্তাটি সম্পূর্ণ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। গোটা এলাকা পুলিশ ব্যারিকেড করে ঘিরে রেখেছে। ইতিমধ্যেই ওই বহুতলটির আশপাশের বাড়ি ও দোকানগুলিও ফাঁকা করে দেওয়া হয়েছে। এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় এখনও পর্যন্ত একজনের মৃত্যুর খবর ছাড়া হতাহতের কোনও খবর মেলেনি। তবে দমকল কর্মীরা আশঙ্কা করছেন, আগুন নেভানোর কাজ সম্পূর্ণ হলেই প্রকৃত ক্ষয়ক্ষতি বা হতাহতের পরিমাণ জানা যাবে।