Saturday, February 4, 2023

নীরব মোদির মামলা খারিজের আবেদন বাতিল করল মার্কিন আদালত

- Advertisement -

নিউজ ডেস্ক: পঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংকের কাছ থেকে প্রায় ১৪ হাজার কোটি টাকা ঋণ নিয়ে তা পরিশোধ না করেই দেশ ছেড়ে পালিয়ে গিয়েছেন হিরে ব্যবসায়ী নীরব মোদি। আমেরিকার আদালতেও নিরবের বিরুদ্ধে একটি প্রতারণার মামলা চলছে।

- Advertisement -

রিচার্ড লেভিন নামে নিউ ইয়র্কের এক ব্যক্তি আদালতে অভিযোগ করেন, নীরব মোদি তাঁর কাছ থেকে নেওয়া ১৫ লক্ষ ডলার কোনওভাবেই ফেরত দিচ্ছেন না। লেভিনের দায়ের করা ওই মামলা খারিজ করার জন্য আর্জি জানিয়ে ছিলেন নীরব ও তাঁর দুই সহযোগী মিহির বনশালী ও অজয় গান্ধী। তবে মার্কিন আদালত নীরবের ওই আবেদন খারিজ করে দিয়েছে।

২০১৯ সালে লন্ডনের এক মেট্রো স্টেশন থেকে গ্রেফতার হয়েছিলেন নীরব। বর্তমানে ব্রিটেনের জেলে বন্দি রয়েছেন এই ব্যবসায়ী। ভারতেও তাঁর বিরুদ্ধে একাধিক জালিয়াতি ও অর্থ তছরুপের অভিযোগ রয়েছে। শুধু তাই নয়, তথ্য প্রমাণ লোপাট ও সাক্ষীদের ভয় দেখানোর অভিযোগও উঠেছে নীরবের বিরুদ্ধে। সিবিআই, ইডি, আয়কর বিভাগের মত কেন্দ্রীয় সংস্থা একযোগে নীরবের বিরুদ্ধে তদন্ত চালাচ্ছে।

- Advertisement -

যে কারণে ভারত ইতিমধ্যেই ব্রিটেনের কাছে নীরবকে প্রত্যর্পণের আর্জি জানিয়েছে। চলতি বছরের এপ্রিল মাসের মাঝামাঝি ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্র সচিব প্রীতি প্যাটেল নীরব মোদিকে ভারতের হাতে তুলে দেওয়ার অনুমতি পত্রে স্বাক্ষর করেছেন। যদিও নীরব ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্র সচিবের ওই সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করে উচ্চতর আদালতে আবেদন করেছেন।

সোমবার নিউ ইয়র্কের আদালতে শুনানি শুরু হলে নীরবের আইনজীবী বলেন, তাঁর মক্কেলকে এই মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়া হোক। আপাতত আর্থিক অবস্থার কারণে তিনি লেভিনের ওই অর্থ পরিশোধ করতে পারছেন না। নীরব এই মুহূর্তে জেলবন্দি রয়েছেন। প্রায় দু’বছর হল তার তার সমস্ত আর্থিক লেনদেন বন্ধ রয়েছে। সে কারণেই তিনি লেভিনের থেকে নেওয়া টাকা ফেরত দিতে পারছেন না। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই তিনি লেভিনের টাকা মিটিয়ে দেবেন।

অন্যদিকে লেভিনের আইনজীবী পাল্টা বলেন, দীর্ঘ কয়েক বছর ধরেই নীরব টাকা ফেরত দেওয়ার ব্যাপারে টালবাহানা করছেন। টাকা ফেরত দেওয়ার বিষয়ে তিনি কোনও উত্তরই দিচ্ছেন না। তাই এই মামলা থেকে কখনওই নীরবকে রেহাই দেওয়া যায় না। উভয় পক্ষের আইনজীবীর বক্তব্য শোনার পর নিউইয়র্ক আদালত অবশ্য নীরবের মামলা খারিজের আবেদন বাতিল করে দিয়েছে। বিচারক জানিয়েছেন, এই মামলার শুনানি চলবে।

- Advertisement -