India Politics: গুজরাটে মোদী, হিমাচল রাহুলের

73
modi-rahul

পাকিস্তান ও চিন এই দুটি দেশের আন্তর্জাতিক সীমান্তবর্তী রাজ্যের ফলাফলে দেশের দুই প্রধান প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক শক্তি (BJP) বিজেপি ও কংগ্রেসের (INC) পক্ষে স্বস্তির খবর আনল। প্রতিষ্ঠান বিরোধিতার সূত্র মেনে চিনের লাগোয়া হিমাচল প্রদেশে (Himachal Pradesh) সরকার গড়তে চলেছে কংগ্রেস। আর পাকিস্তান লাগোয়া (Gujarat) গুজরাটে প্রবল শক্তি নিয়ে নতুন নজির গড়ে ফের ক্ষমতায় বিজেপি। গুজরাট দখলে রাখলেন (Narendra Modi) মোদী। হিমাচল দখল করলেন রাহুল গান্ধী (Rahul Gandhi)।

তাৎপর্যপূর্ণ, সদ্য জাতীয় কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সভাপতি হওয়ার পর মল্লিকার্জুন খাড়গের কাছে হিমাচলের হিমেল হাওয়া অনেকটা স্বস্তির। অ-গান্ধী পরিবারভুক্ত বর্ষীয়ান নেতা কংগ্রেসের সভাপতি হওয়ার পর একটি রাজ্যে সরকার গড়ার সুখানুভূতি পাচ্ছেন। যদিও গুজরাটে কংগ্রেসের ফলাফল করুণ। এ রাজ্যে বিজেপি নজির ভেঙেছে খোদ মোদীর। তিনি যখন মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন তার থেকেও বেশি আসনের দখল নিয়েছে বিজেপি।

গুজরাটে সরকার গড়া নিশ্চিত বলে ধরেই নিয়েছিল বিজেপি। আর কংগ্রেস তেমন নজরই দেয়নি গুজরাটে। এ রাজ্যের ভোট ভুলে রাহুল গান্ধীর নজরে লোকসভা নির্বাচন। সেই লক্ষ্যে তিনি ভারত জোড়ো যাত্রা করছেন। তাঁর এই পদযাত্রা রাজনীতিতে কংগ্রেসের মধ্যে তীব্র উত্তেজনা। এমনকি জনতার ঢল দেখে বিজেপি শিবিরও চিন্তিত। হিমাচলেও নজর দেননি রাহুল।

তবে হিমাচলের গণনা ইঙ্গিত দিচ্ছে ঘোড়া কেনাবেচার (টাকা দিয়ে বিধায়ক ভাঙানোর খেলা) প্রবল সম্ভাবনা। ফলাফল এমন হতে পারে ইঙ্গিত পেয়ে হিমাচল প্রদেশ কংগ্রেস ফলপ্রকাশের আগের রাতে ৩০ জন কর্মীকে দল থেকে বহিষ্কার করেছে। সিমলা থেকেই বেশিরভাগ কংগ্রেস কর্মী দল থেকে বিতাড়িত হয়েছে।